হিন্দুদেরই নিশানা করা হচ্ছে, বাজি নিষিদ্ধকরণে এবার সরব রামদেব

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:  দিওয়ালিতে দিল্লিতে আতশবাজি নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্তে বিরোধিতার সুর চড়ছে। লেখক চেতন ভগত, ত্রিপুরার রাজ্যপাল তথাগত রায়ের পর এবার সুপ্রিম কোর্টের রায়ের তীব্র সমালোচনা করলেন বাবা রামদেব।  তিনি বলেন, হিন্দুদেরই নিশানা করা হচ্ছে। হিন্দুদের বিভিন্ন উৎসবকে যেভাবে আতশকাচের নিচে ফেলা হচ্ছে, তা ঠিক নয়।

[‘দিওয়ালির বাজিতে না, মহরমে রক্তপাতও কি নিষিদ্ধ হবে?’]

দিল্লিতে দূষণ ঠিক কতটা বেড়েছে, তা এখন আর কারোরই অজানা নয়। দিওয়ালির সময়ে রাজধানীতে দূষণের চেহারাটা আরও ভয়াবহ হয়ে ওঠে। তাই দিল্লিতে বাজি নিষিদ্ধ করার আরজি জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিল কয়েকটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। সেই আবেদন মেনে নিয়েই দিল্লি ও রাজধানী অঞ্চলে আতশবাজি নিষিদ্ধ বলে ঘোষণা করেছে শীর্ষ আদালত। আগামী ১ নভেম্বর পর্যন্ত এই নিষেধাজ্ঞা জারি থাকবে। কিন্তু,  ইতিমধ্যেই সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ বিরোধিতায় সরব হয়েছেন লেখক চেতন ভগত, ত্রিপুরা রাজ্যপাল তথাগত রায়। আর এবার এই ইস্যুতে মুখ খুললেন রামদেবও। তিনি বলেন, ‘ সবকিছু নিয়েই আদালতের দ্বারস্থ হওয়াটা কি মানুষের অধিকারের মধ্যে পড়ে?  আমিও স্কুল, বিশ্ববিদ্যালয় চালাই। আমরা শুধু হাতে ধরা যায়, এমন বাজি ফাটানোর অনুমতি দিই। এই বাজিগুলি খুবই আস্তে আস্তে পোড়ে। আমরা শব্দবাজি ফাটানো সমর্থন করি না। বড় বাজির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা উচিত।’  এই ধর্মগুরুর আরও অভিযোগ, শুধুমাত্র হিন্দুদেরই নিশানা করা হচ্ছে। তাঁদের উৎসবগুলি আতশকাচের নিচে ফেলা হচ্ছে।

[‘কোনদিন শুনব দূষণের কারণে হিন্দুদের দাহ করাও নিষিদ্ধ হয়েছে’]

তবে শুধু দিল্লিতে আতশবাজিতে নিষেধাজ্ঞার সমালোচনা করাই নয়, সুপ্রিম কোর্টের রায়কে সমর্থন করায় শশী থারুরের সমালোচনা করেছে রামদেব। তিনি বলেন, ‘ থারুরের মতো বুদ্ধিমান লোকের এইরকম কথা বলে উচিত নয়।’  প্রসঙ্গত, দিল্লিতে আতশবাজি নিষিদ্ধ করা নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে রায়কে সমর্থন করে টুইট করেছিলেন কেরলের কংগ্রেস সাংসদ শশী থারুর।

[মন্দ কপাল! খোয়া গেল কেজরিওয়ালের প্রিয় গাড়ি]

এর আগে, রামদেবের মতোই সুপ্রিম কোর্টের রায়ের সমালোচনা করেছিলেন লেখক চেতন ভগত। তিনি প্রশ্ন তুলেছিলেন, শুধু হিন্দু উৎসবের উপরই কেন নিষেধাজ্ঞা?  তাহলে কি ইদে ছাগল ও মহরমে রক্তপাতেও নিষেধাজ্ঞা জারি হবে?  অন্যদিকে ত্রিপুরা রাজ্যপাল তথাগত রায়ের কটাক্ষ, এবার তো কোনওদিন দূষণের জন্য হিন্দুদের দাহ করাও নিষিদ্ধ হয়ে যাবে।

[সুপ্রিম কোর্টের রায় শরিয়তের উর্ধ্বে নয়, মুসলিম ধর্মগুরুর মন্তব্যে বিতর্ক]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *