একই বন্দুকের গুলিতেই খুন গৌরী ও কালবুর্গি!

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:  সাংবাদিক গৌরী লঙ্কেশ এবং অধ্যাপক এম এম কালবুর্গি। বিজেপি ও সংঘের বিরুদ্ধে কলম ধরেছিলেন দুজনেই। পরিণতিও একই। কর্নাটকে নিজেদের বাড়ির সামনেই দুজনকেই গুলি করে খুন করেছে অজ্ঞাতপরিচয় দুষ্কৃতীরা। আর এবার ফরেনসিক রিপোর্টে জানা গেল, একই বন্দুক থেকে গুলি করা হয়েছিল তাঁদের। বিষয়টি ইতিমধ্যেই গৌরী লঙ্কেশ খুনের তদন্তে গঠিত বিশেষ তদন্তকারী দলকে জানিয়েও দিয়েছেন ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা।

[গীতা আওড়ে মৌলবিদের চক্ষুশূল, স্কুল ছাড়তে বাধ্য হল মুসলিম কন্যা]

ব্যবধান মাত্র দু’বছরের। কর্নাটকের দুই প্রান্তে একই কায়দায় গুলি করে সাংবাদিক গৌরী লঙ্কেশ ও চিন্তাবিদ এম এম কালবুর্গিকে খুন করে দুষ্কৃতীরা। দুটি ঘটনার মধ্যে যে যোগসূত্র আছে, তা আগেই অনুমান করেছিলেন তদন্তকারীরা। শেষপর্যন্ত তদন্তকারীদের সেই অনুমানই সত্যি হল। ফরেনসিক রিপোর্টে বলা হয়েছে, গৌরী লঙ্কেশ ও এম এম কালবুর্গি, দুজনকেই ৭.৬৫ এমএম-র একটি দেশি পিস্তল থেকে গুলি করেছিল দুষ্কৃতীরা।

[দুর্নীতির দায়ে ৪৬টি মাদ্রাসার অনুদান বন্ধ করল যোগী সরকার]

গত ৫ সেপ্টেম্বরে রাতে বেঙ্গালুরুতে নিজের বাড়ির সামনে সাংবাদিক গৌরী লঙ্কেশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় অজ্ঞাতপরিচয় দুষ্কৃতীরা। ঘটনাস্থলেই মারা যান তিনি। পুলিশ সূত্রে খবর, প্রবীণ এই সাংবাদিককে লক্ষ্য করে চারটি গুলি চালিয়েছিল দুষ্কৃতীরা। তিনটি গুলিতে হৃদযন্ত্র ও ফুসফুস ঝাঁজরা হয়ে যায়। আর একটি গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে পাশের একটি পাঁচিলে লাগে। ঘটনাস্থল তল্লাশি করার সময়ে কার্তুজ-সহ চারটি গুলিই উদ্ধার করে পুলিশ। প্রাথমিক তদন্তে তদন্তকারীদের মনে হয়েছিল, গৌরী লঙ্কেশ ও এম এম কালবুর্গি হত্যাকাণ্ডের মধ্যে কোনও যোগসূত্র আছে। নিশ্চিত হওয়ার জন্য দুটি ঘটনায় উদ্ধার হওয়া গুলির ‘ব্যালেস্টিক সিগনেচার’ মিলিয়ে দেখার সিদ্ধান্ত নেন তদন্তকারীরা। সূত্রের খবর, ‘ব্যালেস্টিক সিগনেচার’ মিলিয়ে দেখার পর ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, গৌরী লঙ্কেশ ও এম এম কালবুর্গিকে খুনের ঘটনায় একই  পিস্তল ব্যবহার করেছিল দুষ্কৃতীরা। আর সেই সূত্রেই দুটি ঘটনার পিছনে একই সংগঠন বা গোষ্ঠী জড়িত থাকার সম্ভাবনাও উড়িয়ে দিচ্ছেন না তদন্তকারীরা।

[বুলেট ট্রেনের গতিতে উন্নয়ন হবে দেশে, একসুর মোদি-আবের গলায়]

তদন্তকারীদের সন্দেহের তালিকায় কারা রয়েছে?  জানা গিয়েছে, এখনও পর্যন্ত গৌরী লঙ্কেশ খুনের ঘটনার তদন্তে সনাতন সংস্থা নামে একটি সংগঠনের নাম উঠে এসেছে। তবে সবদিকই খতিয়ে দেখছেন সিট-এর সদস্যরা। বুধবার গৌরী লঙ্কেশের পরিবারের লোক ও প্রবীণ এই সাংবাদিকের মধ্যস্ততায় যেসব মাওবাদী সমাজের মূলস্রোতে ফিরেছেন, তাঁদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন তদন্তকারীরা।

[মাঝ নদীতে উলটে গেল নৌকা, মৃত অন্তত ১৫]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *