সুখোই থেকে আছড়ে পড়বে বিধ্বংসী ‘ব্রহ্মস’, বেকায়দায় চিন-পাকিস্তান

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: চিন-পাকিস্তানের উদ্বেগ বাড়িয়ে প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে আরও এক ধাপ এগিয়ে গেল ভারত। চলতি মাসেই পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণ করা হবে সুপারসোনিক ব্রহ্মস ক্রুজ মিসাইলের। এই ক্ষেপণাস্ত্র পারমাণবিক অস্ত্র বহনে সক্ষম। প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, ২.৪ টন ওজনের মিসাইলটি বঙ্গোপসাগরে সুখোই বিমান থেকে ছোড়া হবে।

[ব্রহ্মসের ল্যান্ড অ্যাটাক ভারসনের সফল উৎক্ষেপণ করল নৌসেনা]

শব্দের তিন গুণ দ্রুত (মক ২.8) এই মিসাইলটি প্রায় ২৯০ কিলোমিটার পর্যন্ত নির্ভুলভাবে লক্ষ্যে আঘাত হানতে সক্ষম। ভারতীয় বায়ুসেনার অত্যাধুনিক সুখোই যুদ্ধবিমান থেকে এই মিসাইল ছোড়া হবে বলে। প্রায় ৩২০০ কিলোমিটারের ক্রুজিং রেঞ্জের এই বিমানের সঙ্গে ব্রহ্মস যুক্ত হলে শত্রুপক্ষের জন্য তা হয়ে উঠবে প্রবল বিধ্বংসী। প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, আকাশ থেকে ভূমিতে হামলা চালাতে সক্ষম এই মিসাইলটি প্রত্যন্ত এলাকায় সন্ত্রাসবাদী ক্যাম্প মুহূর্তে গুঁড়িয়ে দিতে পারবে। শুধু তাই নয়, মাটির নিচে থাকা পারমাণবিক বাঙ্কার ও সমুদ্রের বুকে শত্রুর যুদ্ধজাহাজকেও নিশানা করতে সক্ষম এই ক্ষেপণাস্ত্র। গত কয়েক বছরে ব্রহ্মস ক্ষেপনাস্ত্র কেনার জন্য সেনার তিন বাহিনীই যৌথভাবে প্রায় ২৭ হাজার ১৫০ কোটি টাকা খরচ করেছে।

চলতি বছরের এপ্রিল মাসেই ব্রহ্মস-এর ‘ল্যান্ড অ্যাটাক ভেরিয়েন্ট’-এর সফল উৎক্ষেপণ করে নৌসেনা৷ ওই মিসাইলটির পাল্লা ৪০০ কিলোমিটার৷ আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের কাছে যুদ্ধজাহাজ থেকে ক্ষেপণাস্ত্রটির পরীক্ষা করা হয়৷ ভারতীয় নৌসেনার দু’টি যুদ্ধজাহাজে ব্রহ্মস-এর অন্য একটি ভার্সন ইন্টিগ্রেট করা হয়েছে৷ মুম্বইয়ের মাজগাঁও ডকে নির্মীয়মান ৭,০০০ টনের কলকাতা ক্লাস ডেস্ট্রয়ারে এই ধরনের মিসাইল ইন্টিগ্রেট করা হবে৷ তবে এখানেই শেষ নয় শব্দের পাঁচ গুণ (মাক-৫) গতিবেগ সম্পন্ন ব্রহ্মসের হাইপারসোনিক ভার্সন তৈরির কাজও শুরু হয়ে গিয়েছে।

[শত্রুপক্ষের বুক চিরে আঘাত হানতে সক্ষম হবে ব্রহ্মস-এর নয়া সংস্করণ]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *