অগ্নিকাণ্ডের পর ডুয়ার্সের জঙ্গল থেকে উদ্ধার গুরুতর জখম যুবক

অরূপ বসাক, মালবাজার: মঙ্গলবার সকালে মালবাজারের তারঘেরা এবং কাঠামবাড়ি জঙ্গলের মাঝে চিরাভিজা এলাকায় ওই যুবককে আহত অবস্থা পড়ে থাকতে দেখেন বনকর্মীরা। প্রথমে তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় মালবাজার সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে। সেখানে ওই যুবককে স্থানান্তরিত করা হয় উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। তারঘেরা জঙ্গলের রেঞ্জার দুলাল ঘোষ জানিয়েছেন, সম্ভবত জঙ্গলে কাঠ সংগ্রহ করতে গিয়ে হাতির হামলার মুখে পড়েছেন ওই যুবক। অন্যদিকে পরিবেশপ্রেমীদের বক্তব্য, জঙ্গলে আগুন লাগালে হাতিরা পথ পরিবর্তন করে। সেকারণে এই ঘটনা ঘটে থাকতে পারে। দিন কয়েক আগেই তারঘেরা এবং কাঠামবাড়ি রেঞ্জের মাঝের জঙ্গলে আগুন লেগে গিয়েছিল।

[ফের উত্তরবঙ্গের জঙ্গলে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড, দাউ দাউ করে জ্বলছে বিস্তীর্ণ বনাঞ্চল]

মালবাজার মহকুমার তারঘেরা ও কাঠামবাড়ির রেঞ্জের দূরত্ব ৫ কিমি। পুরো এলাকাটি ঘন জঙ্গলে ঢাকা। এই জঙ্গলে হাতি, চিতাবাঘ-সহ বিভিন্ন বন্যজন্তু রয়েছে। গত কয়েক দিন ধরেই জঙ্গলে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলছিল। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছিলেন, দাবানল নয়, ইচ্ছাকৃতভাবেই জঙ্গলে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে। বন দপ্তরের বিরুদ্ধে নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগও তুলেছিলেন। সোমবার বিকেলে তুমুল ঝড়-বৃষ্টি হয় মালবাজারে। তাতেই জঙ্গলে আগুন নিভেছে।  মঙ্গলবার সকালে তারঘেরা ও কাদামবাড়ি জঙ্গলে মাঝে চিরাভিজা এলাকায়  গুরুতর জখম অবস্থায় পড়েছিলেন এক যুবক। সকালে টহলদারির সময়ে চিরাভিজা এলাকার জঙ্গলে তাঁকে থাকতে দেখেন বনকর্মীরা। ওই যুবককে উদ্ধার করে প্রথমে মালবাজার সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে স্থানান্তরিত করা হয় উত্তরবঙ্গে মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। হাতির আক্রমণে কোমর ভেঙেছে। বুকেও আঘাত লেগেছে। তবে ওই যুবকের পরিচয় জানা যায়নি। তারঘেরা জঙ্গলের রেঞ্জার সুপ্রিয় ঘোষ জানিয়েছেন, সম্ভবত জঙ্গলে কাঠ সংগ্রহ করতে গিয়ে হাতির হামলার মুখে পড়েছেন ওই যুবক। বন দপ্তরের অনুমান, কাঠ সংগ্রহ করতে একসঙ্গে তিন-চার ঢুকেছিল তারঘেরা ও কাদামবাড়ির রেঞ্জে মাঝের জঙ্গলে। হাতি দেখে বাকিরা পালিয়ে যায়। কিন্তু, ওই যুবক পালাতে পারেননি।  বিনা অনুমতি কীভাবে তাঁরা জঙ্গলে ঢুকল, তা খতিয়ে দেখছে বন দপ্তর।

[বাঘ ধরতে গিয়ে গোয়ালতোড়ের জঙ্গলে ২ বনকর্মীর রহস্যমৃত্যু]

এদিকে আবার এই ঘটনার সঙ্গে জঙ্গলে অগ্নিকাণ্ডের সম্পর্ক থাকতে পারে বলে মনে করছে পরিবেশপ্রেমীরা। তাঁদের বক্তব্য, জঙ্গলে আগুন লাগলে হাতিরা পথ পরিবর্তন করে। সম্ভবত সেই কারণে হাতির গতিবিধি আঁচ করতে পারেননি ওই যুবক। তাই গজরাজের আক্রমণের মুখে পড়েন তিনি।

[ফেসবুকে বাঘের ভুল ছবি দিয়ে বিভ্রান্তির চেষ্টা, দুই যুবকের নামে এফআইআর]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *