দেশদ্রোহিতার অভিযোগে গ্রেপ্তার গুরুংয়ের অ্যাকশন স্কোয়াডের নেতা

সঞ্জীব মণ্ডল, শিলিগুড়ি: বিস্ফোরক-সহ একাধিক মামলায় গ্রেপ্তার গুরুং ঘনিষ্ঠ মোর্চা নেতা৷ এবার মোর্চার প্রাক্তন জিটিএ সভাসদ তথা বিমল গুরুংয়ের অ্যাকশন স্কোয়াডের নেতা দাওয়া লেপচার ছায়াসঙ্গী রয়াল রাইকে (৩২) গ্রেপ্তার করল কালিম্পং পুলিশ। ধৃতদের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক ও অস্ত্র মজুত সহ দেশদ্রোহিতার মামলা রয়েছে।

ইউএপিএ’র মামলায় অভিযুক্ত দাওয়া লেপচার মতোই রয়াল রাই এতদিন পালিয়ে ছিল। বৃহস্পতিবার রয়ালকে পেডংয়ের সাকিয়ং এলাকায় তার নিজের বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। অভিযুক্তকে এদিন কালিম্পং আদালতে  পেশ করা হলে বিচারক ধৃতদের জামিনের আবেদন খারিজ করে দশ দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন৷

[সিউড়ির দিলদার শেখ খুনের তদন্তে সিট গঠন বীরভূম জেলা পুলিশের]

গত বছরের অক্টোবরে পাহাড়ে বিমল গুরুংদের আন্দোলনের সময় কালিম্পংয়ে একটি বাড়িতে প্রচুর বিস্ফোরক সামগ্রী মজুত রাখার হদিশ পায় পুলিশ। এ ঘটনায় বিমল গুরুং, দাওয়া লেপচাসহ একাধিক মোর্চা নেতার বিরুদ্ধে ইউএপিএ ধারায় মামলা রুজু করা হয়। সেই মামলায় এর আগে দু’জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। এদিন রয়াল ধরা পড়ায় ওই মামলায় ধৃতের সংখ্যা বেড়ে তিন হল বলে কালিম্পং পুলিশ সূত্রে খবর।

কালিম্পংয়ের পুলিশ সুপার ধ্রুবজ্যোতি দে জানান, এদিন পুলিশের কাছে খবর আসে অভিযুক্ত বাড়িতে রয়েছে। সেই মোতাবেক অভিযান চালিয়ে রয়ালকে গ্রেপ্তার করা হয়। তবে এখনও দাওয়া লেপচা পলাতক। রয়ালকে জেরা করে দাওয়া লেপচার হদিশ পাওয়ার চেষ্টা করা হবে। পাহাড়ে মোর্চার আন্দোলনের সময় বিভিন্ন জায়গা থেকে প্রচুর অস্ত্রশস্ত্র উদ্ধার হয়। বোমা উদ্ধার সহ জিলেটিন স্টিক, বিস্ফোরক পাওয়া যায়। নাশকতার কাজে ব্যবহার করার জন্য এই বিস্ফোরকগুলি মজুত রাখা হয়েছিল বলে জানা গিয়েছে। শেষ আন্দোলনের সময় কালিম্পং থানায় আইইডি বিস্ফোরণে একজন সিভিক ভলান্টিয়ারের মৃত্যু হয়৷ জখম হন আরও একজন। এছাড়াও বিভিন্ন জায়গায় হামলার ঘটনায় গুরুংয়ের অ্যাকশন স্কোয়াড জড়িত বলে পুলিশের কাছে খবর। রয়ালকে জেরা করে ওইসব বিস্ফোরক অস্ত্র কোথা থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে তা জানা যাবে বলে তদন্তকারীরা মনে করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *