পাহাড়ে বনধ বেআইনি, হাই কোর্টের নির্দেশে বেকায়দায় মোর্চা

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বনধ নিয়ে আদালতে জোর ধাক্কা খেল মোর্চা। উল্টোদিকে হাত শক্ত হল রাজ্যের। চার বছর আগে হাই কোর্ট বনধকে বেআইনি ঘোষণা করেছিল। শুক্রবার সেই সিদ্ধান্ত বহাল রাখল হাই কোর্টের ভারপ্রাপ্ত বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ। পাহাড়ে বনধে কী পরিমান ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা নিয়ে অন্তর্বর্তী রিপোর্ট চেয়েছে আদালত। আগামী ২ সপ্তাহের মধ্যে রাজ্যের মুখ্যসচিবকে এই নিয়ে রিপোর্ট জমা দিতে হবে। পাহাড় সচল রাখতে যা যা প্রয়োজন তার জন্য প্রশাসনকে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

[এবার কেন্দ্রের সম্পত্তি নিশানা মোর্চার, জলবিদ্যুৎ প্রকল্প স্টেশনে আগুন]

মরচে পড়া বনধকে হাতিয়ার করে পাহাড়ে প্রাসঙ্গিক হতে চাইছে গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা। সরকারি সম্পত্তি ভাঙচুর, আগুন লাগিয়ে দার্জিলিংয়ের অস্থিরতা তৈরির চেষ্টা হচ্ছে। পর্যটকদের বুঝিয়ে দেওয়া হচ্ছে এখানে না এলেই মঙ্গল। গোর্খাল্যান্ড নিয়ে ক্রমশ কোনঠাসা বিমল গুরুংয়ের কাছে বনধই এখন খড়কুটো। দিনের পর দিন পাহাড়ে এমন অচলাবস্থা যে মানা হবে না, তা শুক্রবার স্পষ্ট করে দিল আদালত। এদিন কলকাতা হাইকোর্টের ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি নিশিতা মাত্রের ডিভিশন বেঞ্চ এই নিয়ে রাজ্য সরকারকে একগুচ্ছ নির্দেশ দিয়েছে। মোর্চার বনধে পাহাড়ে কী পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা আগামী দু সপ্তাহের মুখ্যসচিবকে রিপোর্ট দিতে হবে। পরিস্থিতি কড়া হাতে মোকাবিলার জন্য প্রশাসনকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। স্কুল-কলেজ সহ সমস্ত জরুরি পরিষেবা চালু রাখতে সবরকম ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলা হয়েছে। হাই কোর্ট স্পষ্ট করে দিয়েছে পাহাড় সচল রাখতে যা যা করণীয় তা করতে হবে। বিচারপতিদের প্রশ্নের জবাবে রাজ্য জানায় পরিস্থিতি উত্তপ্ত বলে সেনাকে তলব করা হয়। পাশাপাশি পাহাড়ের বর্তমান অবস্থাও জানানো হয়।

[মোর্চার বনধের ফাঁসে চা বাগান, বিদেশের বরাত বাতিল]

বনধকে ২০১৩ সালে বেআইনি বলে ঘোষণা করেছিলেন তৎকালীন প্রধান বিচারপতি অরুণ মিশ্র। সেই নির্দেশ বহাল রাখল নিশিতা মাত্রের ডিভিশন বেঞ্চ। চার বছর আগে মোর্চার বনধ নিয়ে মামলা হয়েছিল। তখন রাজ্য জানিয়েছিল বনধের জন্য ৬৯ কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছিল। ক্ষতিপূরণের অর্থ মোর্চাকে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। এই মামলা অবশ্য এখনও বিচারাধীন। বনধ নিয়ে কড়া অবস্থানের কথা একাধিবার জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাহাড়ের বনধ রুখতে তিনি  আদালতের সিদ্ধান্তের কথা মনে করিয়ে দিয়েছিলেন। বিশেষজ্ঞদের ধারণা, আদালতের এই নির্দেশ বনধ নিয়ে রাজ্যের অবস্থানকে আরও শক্ত হল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *