ফের সিরিয়ায় হামলা হলে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ অবধারিত, চূড়ান্ত হুঁশিয়ারি পুতিনের

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ডোনাল্ড ট্রাম্পের হুঙ্কারের পালটা হুঁশিয়ারি দিলেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। রবিবার সাফ জানালেন, সিরিয়াতে পশ্চিমী দেশের আর একটি মিসাইল আছড়ে পড়লে গোটা বিশ্বে এমন বিশৃঙ্খলা তৈরি হবে, যার ফল মারাত্মক হতে পারে। মার্কিন গণমাধ্যমগুলির দাবি, পুতিনের এই হুঁশিয়ারি আদতে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরুর হুমকি! সিরিয়াতে মার্কিন হামলার প্রাথমিক ধাক্কা কাটিয়ে ঘর গোছাতে শুরু করেছে রাশিয়া। ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানির সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছেন পুতিন। গত সাত বছরের রক্তক্ষয়ী গৃহযুদ্ধের পাশাপাশি সদ্য মার্কিন হামলা যে সিরিয়াতে রাজনৈতিক অচলাবস্থা তৈরি করল, সে বিষয়ে দুজনেই একমত। এমনটাই জানাচ্ছে ক্রেমলিনের এক বিবৃতি।

[গুঁড়িয়ে গিয়েছে রাসায়নিক অস্ত্রাগার, ‘মিশন সাকসেসফুল’ বলে অভিযান শেষের ডাক ট্রাম্পের]

শুধু পুতিনের হুঁশিয়ারি নয়, ক্রেমলিনের কয়েকটি পদক্ষেপও তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের আশঙ্কা তৈরি করছে। রুশ সরকারি সংবাদমাধ্যম নাগরিকদের বাঙ্কারে যথেষ্ট পরিমাণে খাবার এবং আয়োডিন মজুত করে রাখার পরামর্শ জারি করেছে। সিরিয়ার রাজধানী শহর দামাস্কাসে মার্কিন বিমান হামলার কড়া নিন্দা করেছে রাশিয়া। রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে আমেরিকা ছাড়াও ব্রিটেন এবং ফ্রান্সের বিরুদ্ধে আগ্রাসনের অভিযোগ জানিয়ে নিন্দাপ্রস্তাবও পেশ করেছে তারা। কিন্তু ১৫টি সদস্য দেশের মধ্যে কেবলমাত্র চিন এবং বলিভিয়া ছাড়া আর কেউ এই প্রস্তাব সমর্থন করেনি। এই পরিস্থিতিতে বিশ্বের ক্ষমতাশালী দেশগুলির মধ্যে যে সিরিয়া নিয়ে প্রবল চাপানউতোর তৈরি হয়েছে, তাতেই আরও একটা বিশ্বযুদ্ধের শঙ্কা জোরালো হচ্ছে।

এরই মধ্যে আমেরিকার প্রেসিডেন্টের মন্তব্য নিয়ে বিতর্ক ছড়িয়ে পড়েছে গোটা বিশ্বে। হামলা শেষ হওয়ার পর ট্রাম্প ঘোষণা করেন, “মিশন অ্যাকমপ্লিশড! আমরা জিতে গিয়েছি।” সঙ্গে সঙ্গেই ক্ষোভে ফেটে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়া। ট্রাম্পের পূর্বসূরি, জর্জ বুশও এর আগে এই একই শব্দবন্ধ উচ্চারণ করেছিলেন। ২০০৩ সালে ইরাক যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর পরই তৎকালীন প্রেসিডেন্ট সগর্বে ঘোষণা করেছিলেন, “মিশন অ্যাকমপ্লিশড।” তবে আখেরে সেই ‘মিশন’ সমাপ্ত হয়েছিল ২০১১ সালে। আট বছর পর। তাহলে কি যেভাবে প্রাক্তন আগেভাগে আলপটকা মন্তব্য করে ঠকে গিয়েছিলেন, বর্তমানও সেই একই পথে হাঁটতে চলেছেন, জল্পনা ছড়ায় সোশ্যাল মিডিয়ায়? অন্যদিকে, মার্কিন আকাশ-হামলার পর দামাস্কাসে এখন শুধুই শ্মশানের স্তব্ধতা। চারদিকে তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়া ঘরবাড়ি। যতদূর চোখ যায়, নজরে আসে কেবল ধ্বংসস্তূপ। সমালোচনা সত্ত্বেও নিজের অবস্থানে অনড় হোয়াইট হাউস। রাষ্ট্রপসংঘে মার্কিন দূত নিকি হ্যালি জানান, সিরিয়ায় রাসায়নিক অস্ত্রের প্রয়োগ বন্ধ না হলে ফের হামলা হবে।

[তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ কি আসন্ন? সিরিয়ায় একযোগে মিসাইল হানা আমেরিকা, ফ্রান্স ও ব্রিটেনের]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *