ফাঁসির বিরুদ্ধে আবেদন করার জন্য ৬০ দিন সময় পাবেন কুলভূষণ

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রাক্তন নৌসেনা আধিকারিক কুলভূষণ যাদবের মৃত্যুদণ্ডের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ থেকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। মঙ্গলবার সংসদে এ নিয়ে চরম নিন্দার ঢেউ ওঠে। পাকিস্তানকে কড়া হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়, কুলভূষণ যাতে বিচার পান তার সর্বোত চেষ্টা চালাবে ভারত। কিন্তু নিজেদের সিদ্ধান্তে অনড় প্রতিবেশী রাষ্ট্র। পাকিস্তানের তরফে জানানো হয়েছে, ফাঁসির বিরুদ্ধে আবেদন করার জন্য ৬০ দিন সময় পাবেন কুলভূষণ।

[কুলভূষণকে ফাঁসির আদেশ সঠিক, মন্তব্য এই কাশ্মীরি নেতার]

সোমবার আচমকা ওই আধিকারিকের ফাঁসির নির্দেশ দিয়েছিল পাক সেনা আদালত। কিন্তু পাক প্রতিরক্ষামন্ত্রী খাওয়াজা আসিফের দাবি, এই সিদ্ধান্ত আকস্মিকভাবে নেওয়া হয়নি। তিন মাসের ট্রায়ালের পর ফাঁসির সাজা ঘোষণা করা হয়। এক্ষেত্রে কোনও নিয়ম ভাঙা হয়নি। সাজা ঘোষণার পর ফের ভারতের বিরুদ্ধে নয়া অভিযোগ এনেছে পাকিস্তান মিডিয়া। তাদের দাবি, কুলভূষণের মৃত্যুদণ্ডের বদলা নিতে ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা র’য়ের এক আধিকারিক প্রাক্তন পাক লেফ্টেন্যান্ট কর্ণেলকে অপহরণ করেছে। গত ৮ এপ্রিল রাওয়ালপিণ্ডির রাওয়াত থানায় প্রাক্তন লেফ্টেন্যান্ট কর্ণেল মহম্মদ হাবিব জাহিরের নিরুদ্দেশ হওয়ার এফআইআর দায়ের করেছিলেন ছেলে সাদ জাহির। জানিয়ে ছিলেন, তাঁর বাবা পাক গোয়েন্দা এজেন্সি আইএসআই-এর চর ছিলেন। নেপালের লুম্বিনি থেকে নিরুদ্দেশ হন তিনি। এই ঘটনাকেই এবার কুলভূষণের ফাঁসির সাজার সঙ্গে জুড়ে রাজনৈতিক রূপ দিয়েছে পাক মিডিয়া।

[নগদ টাকা নয়, ভোটারদের প্রভাবিত করতে এখন এগুলিই হাতিয়ার]

এর আগে পাক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ জানিয়ে ছিলেন, পাকিস্তান শান্তিপ্রিয় দেশ। তাই প্রতিবেশী দেশগুলির সঙ্গে সুসম্পর্ক রেখেই চলবে পাকিস্তান। মুখে বললেও কাজে তেমনটা করে দেখাতে পারেননি। একের পর এক জঙ্গি হামলার পর কুলভূষণের মৃত্যুদণ্ডের সাজা ঘোষণা। এর পর দুই দেশের মধ্যে তিক্ততা চরমে পৌঁছেছে। কুলভূষণকে বিচার পাইয়ে দিতে সবরকম পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে প্রস্তুত ভারত। এদিকে, পাক সেনা আদালতের সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশ্ন তুলল আমেরিকাও। মার্কিন বিশেষজ্ঞদের মতে, রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রনোদিতভাবেই মৃত্যুদণ্ডের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

[শ্বশুরবাড়ির লোককে মাদক খাইয়ে ফুলশয্যার রাতেই পালাল নতুন বউ]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *