জানেন, কেন নেটদুনিয়ায় দিনভর খোরাক হলেন ঋষি কাপুর?

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: টুইটারে সবসময়ই সক্রিয় অভিনেতা ঋষি কাপুর। কোনও না কোনও প্রসঙ্গ নিয়ে প্রায় রোজই তিনি তাঁর বক্তব্য প্রকাশ করেন টুইটারে। সেরকমই রাহুল গান্ধীকে নিয়ে টুইট করে এবার বিপাকে পড়লেন এই অভিনেতা। ভারতবর্ষের ৭০ বছর নিয়ে ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি বক্তৃতা দেন রাহুল গান্ধী। বক্তৃতার পর শুরু হয় এক প্রশ্নোত্তর পর্ব। সেখানেই শ্রোতাদের মধ্যে থেকে এক ব্যক্তি রাহুলকে প্রশ্ন করেন পরিবারতন্ত্র নিয়ে। আর তাঁর উত্তরেই রাহুল জানান, তিনি একা নন, অখিলেশ যাদব থেকে শুরু করে অভিষেক বচ্চন এমনকী মুকেশ আম্বানীও পরিবারতন্ত্রের অংশ। ভারতে নাকি এমনটাই রীতি।

[দুই নায়িকাকে সঙ্গে নিয়ে মাঝ আকাশে চমক দিতে তৈরি দেব]

তাঁর এই উত্তরেই বেজায় চটেছেন ঋষি কাপুর। রাহুলকে জবাব দিতে তিনি টুইটারকেই মাধ্যম হিসাবে বেছে নিয়েছেন। পরিবারতন্ত্রের দোহাই না দিয়ে নিজের যোগ্যতায় সম্মান পাওয়ার পন্থা রাহুলকে শিখতে বলেছেন অভিনেতা। তিনি লেখেন, “রাহুল গান্ধী। ভারতের ১০৬ বছরের সিনেমার ইতিহাসে কাপুর বংশের অবদান ৯০ বছরের। আর প্রত্যেক প্রজন্মই নিজের যোগ্যতায় সাধারণ মানুষের ভালবাসা পেয়েছে।” আরও একটি টুইটে তিনি লেখেন, “ভগবানের কৃপায় আমরা চার প্রজন্ম-পৃথ্বীরাজ কাপুর, রাজ কাপুর, রণধীর কাপুর, রণবীর কাপুর ছাড়াও আরও অনেকে ছিলাম। তাই লোকজনকে পরিবারতন্ত্রের দোহাই না দিয়ে নিজের কাজের মধ্যে দিয়ে ভালবাসা ও সম্মান পাওয়ার চেষ্টা করুন, গুন্ডাগিরি করে নয়”।

 

 

 

[এবার সাইকোলজিক্যাল থ্রিলারে পাশাপাশি চিরঞ্জিৎ ও জয়া এহসান]

এরপরই টুইটারে ট্রোল হতে থাকেন ঋষি কাপুর। অনেকেই এগিয়ে আসেন রাহুল গান্ধীর সাপোর্টে। অনেকেই বলেন, গান্ধী পরিবারও জনসাধারণের দ্বারাই নির্বাচিত।

 

 

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *