সাদা ময়ূরের বংশবৃদ্ধি, বেঙ্গল সাফারি পার্কে পর্যটকের ঢল

সংগ্রাম সিংহরায়, শিলিগুড়ি: রয়্যাল বেঙ্গলের পর এবার বংশবৃদ্ধি করল সাদা ময়ুর। সাফারি পার্কের পাখিরালয়ের অন্যতম সাদা ময়ুরের সংখ্যা ছিল তিন। সদস্য বাড়ার পর তা দাঁড়াল ছয়ে। এ ছাড়া আরও একটি সুখবর শোনালেন বেঙ্গল সাফারি পার্কের কর্তারা। রবিবার সাফারি পার্কে টিকিট বিক্রি দু’লক্ষ ছাড়িয়েছে। যা এ যাবৎকালের মধ্যে দ্বিতীয় রেকর্ড। এর আগে একমাত্র বড়দিনের ছুটিতে সওয়া দু’লক্ষ টাকার টিকিট বিক্রি হয়েছিল বলে জানান সাফারি পার্কের অধিকর্তা অরুণ মুখোপাধ্যায়। তিনি বলেন, “প্রতিদিনই ভিড় হলেও, সকালের সাফারির চাহিদা তুলনামূলক কম। যেদিন সকালের সাফারিও ভর্তি হয়ে যায়, সেদিন রেকর্ড গড়ে।”

[আন্দোলনে ঠিকা শ্রমিকরা, নোংরা বাড়ছে হাওড়া স্টেশনে]

সোমবারই কয়েকদিনের পাহাড় সফরে উত্তরবঙ্গে পা রেখেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁরই উদ্যোগে অবহেলায় পড়ে থাকা ‘সোরিয়া পার্ক’ পরিণত হয়েছে দেশের অন্যতম সেরা সাফারি পার্কে। এখনও তাকে সাজানো চলছে। অল্প কিছু দিনের মধ্যেই লেপার্ড সাফারি চালু হওয়ার কথা। এনক্লোজার তৈরির কাজ প্রায় শেষ বলে জানিয়েছেন পার্ক অধিকর্তা। এখন সরকারি সিদ্ধান্তের উপর নির্ভর করবে কবে লেপার্ড এনে ছাড়া হবে। কোচবিহার জেলা থেকে লেপার্ড আনার প্রস্তুতিও শুরু হয়েছে। র‌য়্যাল বেঙ্গল ত্রয়ী এখন সুস্থ আছে বলে জানালেও এখনও মায়ের তত্ত্বাধানেই আছে তারা। তবে গণ্ডারটিকে এখনও লোকচক্ষুর আড়ালেই রাখা হচ্ছে। দ্রুত প্রজাপতি গার্ডেন এবং মাছের টানেল অ্যাকোরিয়াম তৈরির ব্যাপারে উদ্যোগ নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি। এর আগে পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব, এই দু’টি প্রকল্প নিয়ে তাঁর স্বপ্নের কথা জানিয়েছিলেন। তাঁর সঙ্গে পরামর্শ করেই কাজ এগোবে বলে জানান তিনি।

পাহাড় সফরের মাঝে মুখ্যমন্ত্রী আসতে পারেন, এমন সম্ভাবনায় সাফারি পার্ককেও সাজিয়ে গুছিয়ে তোলা হয়েছে। একটি নির্দিষ্ট গাড়িকে বাছাই করে তৈরি রাখা হয়েছে। যাতে হঠাৎ সূচি এলেও কোনও অসুবিধা না হয়। পার্কে দর্শক সংখ্যার হার প্রতি মাসেই কিছুটা করে বাড়ছে বলে জানা গিয়েছে। অনেকেই বাচ্চা প্রসবের খবর পেয়ে সব ক’টি র‌য়্যাল বেঙ্গল দেখতে চাইছেন। তাঁদের নিরাশ হয়ে ফিরতে হচ্ছে। তবে অল্প কয়েকদিনের মধ্যে একাধিক বাঘকে ছাড়া হবে বাইরে বলে জানানো হয়েছে।

[শহরে ফের নিপা আতঙ্ক, জ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভরতি আরও ১]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *