৪ মাঘ  ১৪২৫  শনিবার ১৯ জানুয়ারি ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফিরে দেখা ২০১৮ ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুকুমার সরকার, ঢাকা: আগামিকাল, রবিবার বাংলাদেশের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। তার আগে নির্বাচন ভবন উড়িয়ে দেওয়া ও আধিকারিকদের উপর হামলার হুমকিতে চাঞ্চল্য। গত কয়েকদিন ধরেই নির্বাচন কমিশনের সিনিয়র আধিকারিকদের মোবাইল ফোনে এসএমএস পাঠিয়ে এমন হুমকি দেওয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় নির্বাচন কমিশনের নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। নাম ও ঠিকানাবিহীন ওই এসএমএস বার্তায় বলা হয়েছে- ‘আল্লা-হু-আকবর। এই কুফরি নির্বাচন বন্ধ কর অথবা মুজাহিদদের হাতে ভয়ঙ্কর পরিণতির জন্য প্রস্তুত থাক। যে কোনও সময় নির্বাচন কমিশন উড়িয়ে দিতে আমরা রেডি।’ ০১৮৮০৯০৮৭৩০ নম্বর থেকে এ হুমকি পাঠানো হয়েছে। ইসির একাধিক কর্মকর্তা জানান, হুমকিতে অনেকের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়েছে। ফলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীগুলোকে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে বলেছে নির্বাচন কমিশন।

এরই মধ্যে নির্বাচন ভবনে তিন স্তরের নিরাপত্তা নিশ্চিতের জন্য সব বাহিনীকে নির্দেশনা দিয়েছে ইসি। এর আগের সংসদ নির্বাচনে কমিশন চত্বর ও নির্বাচন কমিশনারদের বাড়িতে ককটেল হামলা হয়েছিল। এদিকে আওয়ামি লিগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, মনে হয়-একটা শক্তি মরণকামড় দিতে পারে। কারণ, নির্বাচনে জিততে তারা মরিয়া হয়ে উঠেছে। শেষ চেষ্টা হিসেবে তারা মরণকামড় দিয়ে বসতে পারে। কাদের বলেন, এবারের নির্বাচনে দুর্নীতি ও সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিরুদ্ধে ‘ভোট বিপ্লব’ হবে। তিনি বলেন, বিভিন্ন জায়গা থেকে নানা ধরনের অভিযোগ পাচ্ছি। নির্বাচন কমিশন সবদিক থেকে প্রস্তুতি নিয়েছে। জনগণ যখন ভোট দেওয়ার জন্য দৃঢ় সংকল্প, তখন কোনও শক্তি নির্বাচন বানচাল করতে চায়। তবে যত চক্রান্তই হোক তা জনগণ প্রতিহত করবে।

[নির্বাচন ঘিরে উত্তপ্ত বাংলাদেশ, ফের আক্রান্ত হিন্দুরা]

তিনি বলেন, নির্বাচনকে ঘিরে কিছু কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটছে। মুখোশ পরে কিছু সন্ত্রাসী মোটরসাইকেল চালিয়ে চোরাগোপ্তা হামলা করছে। কাদের আরও বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি জানিয়ে পুনর্নির্বাচনের দাবি-সহ বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে অগ্রিম আবেদনপত্র টাইপ করার সময় নোয়াখালির বসুরহাট বাজারের একটি কম্পিউটারের দোকান থেকে কিছু আবেদনপত্র বিজিবি জব্দ করেছে।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং