১০ মাঘ  ১৪২৬  শুক্রবার ২৪ জানুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

দেবব্রত মণ্ডল, বারুইপুর: পণের দাবিতে বধূকে পুড়িয়ে খুনের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়াল এলাকায়। ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার সোনারপুরে। মৃতার বাপের বাড়ির সদস্যদের অভিযোগের ভিত্তিতে ইতিমধ্যেই বধূর স্বামী ও শ্বশুরকে গ্রেপ্তার করেছে সোনারপুর থানার পুলিশ।

যাদবপুরের আদর্শনগরের বাসিন্দা মৌসুমি সরকার। চার বছর আগে সোনারপুরের লাঙলবেড়িয়ার বাসিন্দা স্বপন সরকারের সঙ্গে বিয়ে হয় তাঁর। একটি সন্তানও রয়েছে ওই দম্পতির। জানা গিয়েছে, বিয়ের পর থেকেই পণের জন্য বধূর উপর অত্যাচার করত স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকেরা। মাঝে মধ্যেই বাপের বাড়ি থেকে টাকা নিয়ে আসতে বলা হত বধূকে। না আনলে বেধড়ক মারধরও করা হত তাঁকে। সূত্রের খবর, কয়েকদিন আগেও শ্বশুরবাড়ির দাবি মেনে ৫০০০ টাকা নিয়ে আসেন মৌসুমি।

[আরও পড়ুন: বাড়িতে বাবার কফিনবন্দি দেহ, বিয়ের পিঁড়িতে বসলেন ছেলে]

এরপর বুধবার সকালে হঠাৎই শ্বশুরবাড়ি থেকে বধূর বাপের বাড়িতে ফোন করা হয়। জানানো হয় যে, গুরুতর অসুস্থ মৌসুমি। সেখানে গিয়ে মৃতার পরিবারের সদস্যরা দেখতে পান যে, দগ্ধ অবস্থায় বিছানায় পড়ে রয়েছেন মৌসুমি। শরীরে অধিকাংশই পুড়ে গিয়েছে। এরপরই তাঁরা বধূর স্বামী ও শ্বশুরের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ দায়ের করেন। ইতিমধ্যেই দুই অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মৃতার বাপের বাড়ির অভিযোগ, পণের দাবিতেই পুড়িয়ে বধূকে হত্যা করেছে শ্বশুরবাড়ির লোকেরা। অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন তাঁরা। পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, তদন্ত শুরু হয়েছে। অভিযুক্তরা শাস্তি পাবে।

[আরও পড়ুন: নেপথ্যে পশ্চিমী ঝঞ্ঝা, ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহেও ফের ঊর্ধ্বমুখী তাপমাত্রার পারদ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং