BREAKING NEWS

১৪  আষাঢ়  ১৪২৯  বুধবার ২৯ জুন ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

স্বপ্নভঙ্গ সৌদিতে! নির্মাণকাজের বদলে মরুভূমিতে ভেড়া চড়াচ্ছেন গলসির যুবক

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: July 5, 2018 10:03 am|    Updated: July 5, 2018 10:03 am

Burdwan youth held captive in Saudi Arabia

সৌরভ মাজি, বর্ধমান: সংসারের হাল ফিরবে। সেই আশায় জমি বন্ধক রেখে সমুদ্র পাড়ি দিয়েছিলেন মনিরুদ্দিন শেখ। সুদূর আরবে নির্মাণশ্রমিকের কাজ করতে গিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু সেখানে গিয়ে মরুভূমিতে ভেড়া চড়াতে হবে কল্পনাও করতে পারেননি। শুধু তাই নয়, ঠিকমতো বেতন মিলছে না, খাওয়া-দাওয়াও মিলছে না, খাবার চাইলে কপালে জুটছে মারধর। এমনকী দেশে ফিরতেও দেওয়া হচ্ছে না। পাসপোর্ট, ভিসা কেড়ে নেওয়া হয়েছে।

[খেলতে খেলতে মাঠেই মৃত্যু তরুণ ফুটবলারের, বেলঘরিয়ায় শোকের ছায়া]

সৌদি আরবে নির্মাণকর্মীর কাজ দেওয়ার নাম করে নিয়ে গিয়ে অকথ্য অত্যাচারের শিকার হচ্ছেন পূর্ব বর্ধমানের গলসির খেতুড়া গ্রামের মনিরুদ্দিন শেখ। তাঁকে দেশে ফেরাতে প্রশাসনের দ্বারস্থ হয়েছেন তাঁর স্ত্রী জাহানারা বেগম শেখ। গলসি-২ বিডিও-র কাছে লিখিতভাবে সাহায্য চেয়েছেন তিনি। স্বামীকে দেশে ফেরানোর ব্যবস্থা করার আরজি জানিয়েছেন তিনি। বিডিও শঙ্খ বিশ্বাস জানিয়েছেন, ওই পরিবারের পাশে রয়েছে প্রশাসন। পরিবারকে সমস্ত সম্ভব সাহায্য করা হবে। জেলা শাসক অনুরাগ শ্রীবাস্তবও দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।

মনিরুদ্দিনের স্ত্রী, এক ছেলে ও মেয়ে রয়েছে। এছাড়াও বাড়িতে তাঁর বিধবা মা, ভাই ও তাঁর পরিবার রয়েছে। গত কয়েকদিন ধরে চরম দুশ্চিন্তায় রাত কাটাচ্ছেন তাঁরা। জাহানারা জানান,স্থানীয় এক দালালের মাধ্যমে সৌদিতে কাজে গিয়েছিলেন তাঁর স্বামী। গত ১৮ জুন সৌদি আরবের উদ্দেশ্যে রওনা হন তিনি। এলাকার চাঁদ শেখ নামে একজন সৌদিতে পাঠানোর ব্যবস্থা করে। জাহানারা জানান, চাঁদ শেখ সৌদি আরবে ইজাহার নামে একজনকে ফোন করে কাজে পাঠায় মনিরুদ্দিনকে। কিন্তু মনিরুদ্দিনের উপর অত্যাচারের ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর থেকেই চাঁদ ফেরার। তার মোবাইলও বন্ধ। ইজাহারকে ফোনে যোগাযোগ করতে পারছেন মনিরুদ্দিনের পরিবারের লোকজন।

মনিরুদ্দিনের ভাই আব্বাস জানান, ২২ জুন তাঁর দাদা সৌদি আরবে পৌঁছান। তাঁর দাবি, সেখানে নির্মাণকর্মীর কাজ না দিয়ে তাঁর দাদাকে মরুভূমির বালির মধ্যে গরমে ভেড়া চড়ানোর কাজ করানো হচ্ছে। ঠিকমতো খেতে দেওয়া হচ্ছে না। মারধর করা হচ্ছে। পাসপোর্ট কেড়ে নিয়েছে দালাল। চাইতে গেলে ৪৬০০ রিয়াল অর্থাৎ ভারতীয় মুদ্রায় ৮০ হাজার টাকা দাবি করছে দালাল। মনিরুদ্দিন সেখান থেকে পালিয়ে এক জায়গায় আশ্রয় নিয়েছেন। সেখান থেকেই ফোনে দুর্দশার কথা জানিয়েছেন বাড়িতে। তারপর থেকেই চরম দুশ্চিন্তার মধ্যে পড়েছেন পরিবারের লোকজন।

[‘কষ্ট হলে কী করব?’ মাঠে অভিনয় বিতর্কে সপাট জবাব নেইমারের]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে