BREAKING NEWS

১৭  আষাঢ়  ১৪২৯  শনিবার ২ জুলাই ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

ছেড়ে চলে যাবে, আতঙ্কে স্ত্রীকে খুনের চেষ্টা স্বামীর

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: April 1, 2018 10:54 am|    Updated: July 2, 2019 4:26 pm

Man attempt to murdered his wife before try to commits suicide in Hooghly

নিজস্ব সংবাদদাতা, হুগলি: ‘প্রেমহীন জীবনে’ বেঁচে থাকাই অর্থহীন। তাই জীবন থেকে প্রেম হারিয়ে যাওয়ার আগে ব্লেড দিয়ে স্ত্রীর গলা কেটে নিজের গলায় ব্লেড চালিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করলেন স্বামী। শনিবার সকালে এই ঘটনা দেখে হতচকিত হুগলির পুরশুড়ার নিমডাঙ্গি গ্রাম। মারাত্মক জখম স্বামী দেবদাস ঘোড়ুই ও তাঁর স্ত্রী সাগরিকাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় আরামবাগ মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

দেবদাস বাড়িতেই কম্পিউটারের কাজ করে সংসার চালাতেন। সাগরিকা গৃহবধূ। স্বামী-স্ত্রীর গভীর প্রেমের সম্পর্ক। বছর দুয়েক আগে দেবদাসের সঙ্গে তারকেশ্বর ভীমপুরের বাসিন্দা সাগরিকার প্রথম দেখা। প্রথম দেখাতেই প্রেম। পরে দু’জনে  ভালবেসে বিয়ে করেন। সুখেই দিন কাটছিল দু’জনের। কিন্তু গত এক সপ্তাহ ধরে দেবদাসবাবু মানসিকভাবে হতাশ হয়ে পড়েন বলে জানা গিয়েছে। তাঁর সন্দেহ তৈরি হয় স্ত্রী তাঁকে ছেড়ে চলে যাবে। এই আশঙ্কায় তিনি আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। শনিবার সকালে দেবদাসের বাবা মাঠে চাষের কাজে গিয়েছিলেন। জলের জন্য পাড়ার কলে গিয়েছিলেন মা। হঠাৎ তালাবন্ধ বাড়ির ভিতর থেকে আর্তনাদ শুনে প্রতিবেশীরা ছুটে যায়। দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে দেখা যায় রক্তাক্ত অবস্থায় দু’জনে মেঝেতে পড়ে ছটফট করছেন। দু’জনের গলায় ব্লেডের কাটা চিহ্ন। পাশেই মেঝেতে পড়ে আছে রক্তমাখা ব্লেড। সঙ্গে সঙ্গে প্রতিবেশীরা দু’জনকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে আরামবাগ মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে ভর্তি করেন।

[আসানসোলের মানুষকে শান্তি বজায় রাখার অনুরোধ রাজ্যপালের]

আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিকিৎসাধীন স্ত্রী সাগরিকা বলেছেন, “ স্বামী তাঁকে ছাড়া এক  মুহূর্ত চলতে পারেন না। তাকে খুব ভালবাসেন। কিন্তু কয়েক দিন ধরে ওঁর মানসিক অবস্থার পরিবর্তন হয়।”  দেবদাসের ধারণা,  সাগরিকা তাঁকে ছেড়ে চলে যাবেন।  সবসময় এই ছেড়ে চলে যাওয়ার আতঙ্ক তাড়া করে বেড়াচ্ছিল। ছেড়ে না চলে যাওয়ার জন্য সাগরিকার কাছে বারবার অনুরোধও করেছিলেন তিনি। সাগরিকা জানান,  “তিনি স্বামীকে বলেছিলেন, এই ধরনের ভয়ের কোনো মানেই হয় না। ডাক্তার দেখালে সব ঠিক হয়ে যাবে। ভালবেসে অনেক বোঝালাম,  ভাবলাম সব ঠিক হয়ে যাবে। কিন্তু এদিন সকালে হঠাৎ ঘরে ঢুকে কিছু বুঝে ওঠার আগেই ও আমার গলায় ব্লেড চালিয়ে, নিজের গলায় ব্লে়ড চালিয়ে দেয়।”

হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, দু’জনেরই গলাতেই গভীর ক্ষতের সৃষ্টি হয়েছে। অবস্থা আশঙ্কাজনক। সাগরিকার মা বলেছেন, “তাঁর জামাই দেবদাস মেয়েকে ভীষণ ভালবাসে।”  গত এক সপ্তাহ ধরে জামাই মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ায় শুক্রবার মেয়ের বাড়ি গিয়েছিলেন। তাঁর সন্দেহ কেউ কিছু খাইয়ে দেওয়ার জন্যই জামাই এমন আচরণ করছে। মেয়ের সঙ্গে কথা বলে শনিবার জামাইকে বর্ধমানে ডাক্তার দেখাতে নিয়ে যাবেন বলে ঠিক করেছিলেন। কিন্তু তার আগেই এমন ঘটনা ঘটে গেল। স্বাভাবিকভাবেই দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। প্রতিবেশীদের বক্তব্য,  এমন অবুঝ প্রেম! দু’জনের মধ্যে এত গভীর সম্পর্ক। এমন ঘটনা যে ঘটবে তার বিন্দুমাত্র আঁচ পাওয়া যায়নি।

[এটাই বাংলা, হনুমান জয়ন্তীর ব়্যালিতে জল হাতে এগিয়ে এলেন ফিরোজরা]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে