BREAKING NEWS

১২ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

শিক্ষামূলক ভ্রমণে বেরিয়ে দুর্ঘটনায় পড়ুয়াদের বাস, মৃত্যু শিক্ষকের

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: December 10, 2017 6:52 am|    Updated: September 20, 2019 2:19 pm

An Images

টিটুন মল্লিক, বাঁকুড়া: শিক্ষামূলক ভ্রমণে বেরিয়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়ুয়াদের বাস। মৃত্যু হল শিক্ষক ও বাসচালকের। পূর্ব মেদিনীপুর থেকে পুরুলিয়ায় যাচ্ছিল বাসটি। বাঁকুড়ার বাঁকাদহে বাসটির সঙ্গে লরির মুখোমুখি ধাক্কা লাগে।

[কৃত্রিম পায়ে ভর করেই রাজপথে ফেরার স্বপ্ন ট্রাফিক সার্জেন্ট সুদীপের]

পুলিশ সূত্রে খবর, রবিবার ভোর সাড়ে পাঁচটা নাগাদ এই দুর্ঘটনা ঘটে। পূর্ব মেদিনীপুরের খেজুরির মানসিংহবেড় বাণীশ্রী বিদ্যানিকতেনের ৫০ জন ছাত্র-ছাত্রী ট্যুরিস্ট বাসে করে যাচ্ছিলেন। তাদের সঙ্গে ছিল কয়েকজন শিক্ষক-শিক্ষিকা। পুরুলিয়ার অযোধ্যা পাহাড়, বাঁকুড়ার মুকুটমণিপুর এবং বিষ্ণুপুরে দলটির যাওয়ার কথা ছিল। রাত থেকে বৃষ্টি চলছে বাঁকুড়া জুড়ে। পাশাপাশি আকাশে মেঘ থাকায় ভোরবেলা বেশ অন্ধকার ছিল। ৬০ নম্বর জাতীয় সড়কে বাসটি যখন দ্রুতগতিতে এগোচ্ছিল তখন উলটোদিক থেকে একটি  পাথরবোঝাই লরি ধাক্কা মারে। বিষ্ণুপুর থানার বাঁকাদহ এক নম্বর গেটের কাছে এই ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনার সময় পড়ুয়া ও শিক্ষকরা ঘুমোচ্ছিলেন। দুর্ঘটনার অভিঘাতে তাঁরা ছিটকে পড়েন। ঘটনাস্থলে মারা যান বাসচালক। আহত হন বেশ কয়েকজন শিক্ষক ও পড়ুয়া। স্থানীয় বাসিন্দারা প্রাথমিকভাবে উদ্ধারকাজে হাত লাগান। আহতদের প্রথমে ভরতি করা হয় বিষ্ণুপুর মহকুমা হাসপাতালে। চার শিক্ষকের অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাদেরকে সেখান থেকে বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই মৃত্যু হয় শিক্ষক কুন্তলকান্তি মণ্ডলের।

[সোমবার বিকেল থেকে আবহাওয়ার উন্নতির সম্ভাবনা, মেঘ কাটলেই জাঁকিয়ে শীত]

BNK STUDENT ACCIDENT

৩৯ বছরের কুন্তলকান্তি এই ট্যুরের উদ্যোক্তা। তিনি বাসভাড়া থেকে যাবতীয় ব্যবস্থা করেন। প্রিয় শিক্ষকের মৃত্যুতে ভেঙে পড়েছে পড়ুয়ারা। কুন্তলকান্তি ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে জনপ্রিয় ছিলেন। আহত শিক্ষকদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করে ছাত্র-ছাত্রীরা। দশম শ্রেণির ছাত্রী সন্দীপ আড়ি জানায় অন্ধকারে বিকট আওয়াজে তার ঘুম ভেঙে যায়। সবাই ছিটকে পড়ে। চিৎকার-চেঁচামেচিতে একেবারে আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি হয়। দুর্ঘটনাগ্রস্ত বাসে ছিল একাদশ শ্রেণির ছাত্র আস্তিক দাস। ঘটনার পর থেকে সে শিক্ষকদের জন্য ওষুধ, রক্ত জোগাড় করতে ব্যস্ত। তার ফোন হারিয়ে গিয়েছে। বাড়িতে যোগাযোগ করতে পারছে না। এর মধ্যে টাকা ফুরিয়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছে পড়ুয়ারা। পুলিশ ঘাতক লরির চালককে গ্রেপ্তার করেছে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement