৫ মাঘ  ১৪২৫  রবিবার ২০ জানুয়ারি ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফিরে দেখা ২০১৮ ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

অংশুপ্রতিম পাল, খড়গপুর: লোকালয়ের মধ্যে একটি বন্ধ মদের দোকান খুলতে গিয়ে এলাকার প্রমীলা বাহিনীর কাছে তাড়া খেয়ে পালাতে বাধ্য হলেন খড়গপুর পুরসভার সাত নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর কল্যাণী ঘোষ৷ ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার বিকালে খড়গপুর পুরসভার এগারো নম্বর ওয়ার্ডের পুরনো মালঞ্চার চন্ডীপুর এলাকায়৷ ঘটনাটিকে কেন্দ্র করে চরম উত্তেজনার সৃষ্টি হয়৷ প্রশ্ন উঠে গিয়েছে সাত নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর কাল্যাণী ঘোষের ভূমিকায়৷

[নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল নিয়ে উত্তপ্ত অসম, মুখ্যমন্ত্রীকে হুমকি উলফা প্রধানের]

ঘটনায় হতবাক হয়ে গিয়েছেন ১১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর কালিপদ নায়েক৷ তিনিও বুঝে উঠতে পারছেন না, কেন কল্যাণী ঘোষ এই বিতর্কিত মদ দোকানটি খুলতে গিয়েছিলেন৷ খড়গপুরের পুরপ্রধান প্রদীপ সরকার রীতিমত বিস্ময় প্রকাশ করে বলেছেন, “ওখানে তো কল্যাণী ঘোষকে কেউ যেতে বলেন নি৷ তাহলে তিনি ওখানে কেন গিয়েছিলেন? কে তাঁকে দায়িত্ব দিয়েছে লোকালয়ের মধ্যে বন্ধ থাকা একটি মদের দোকান খোলানোর? কোন নির্দেশের ভিত্তিতে তিনি গিয়েছিলেন?” গোটা ঘটনায় বিব্রত তৃণমূলের খড়গপুর শহর কমিটির সভাপতি রবিশংকর পান্ডে বলেছেন, খোঁজ নিয়ে দেখবেন। চন্ডীপুর এলাকায় লোকালয়ের মধ্যে দুই বছর ধরে বন্ধ থাকা এই মদের দোকান খোলার জন্য তিনি মদের দোকানের মালিকের পরিবারকে নিয়ে হাজির হয়ে যান৷ তখন এলাকার মহিলারা-সহ অন্যান্য বাসিন্দারা এই চেষ্টার প্রতিবাদ শুরু করেন৷ অভিযোগ, প্রতিবাদকে কোনও গুরুত্ব না দিয়ে তিনি জোর করে মহিলাদের ধাক্কা মেরে বন্ধ দোকানের তালা খুলে ঢুকে পড়েন৷ খবর পেয়ে খড়গপুর গ্রামীণ থানার সাদাতপুর তদন্ত কেন্দ্র ও খড়গপুর টাউন থানার নিমপুরা ফাঁড়ির পুলিশ ঘটনাস্হলে পৌঁছায়৷ পুলিশের সামনে মহিলারা ঘটনার প্রতিবাদে ফেটে পড়েন৷ তখন কল্যাণীদেবী দাবি করতে থাকেন তাঁর কাছে এই মদ দোকান খোলার সরকারি নির্দেশ রয়েছে৷ কিন্তু এই দাবির সমর্থনে তিনি কোনও কাগজ দেখাতে পারেন নি৷ এইভাবে প্রায় ঘণ্টা তিনেক কেটে যায়৷ তখন উপস্থিত মহিলাদের ধৈর্যের বাঁধ ভেঙে যায়৷ ক্ষুব্ধ মহিলারা তাঁকে একপ্রকার তাড়া করতে শুরু করেন৷

কল্যাণীদেবীর দাবি, এই ওয়ার্ডে আসার আগে স্থানীয় কাউন্সিলরের সঙ্গে কথা বলেছেন৷ খড়গপুর টাউন থানার আইসি জ্ঞান দেও প্রসাদ সাউ জানিয়েছেন, বিষয়টি নিয়ে শুক্রবার তাঁরা জেলাশাসক ও জেলা পুলিশ সুপারের সঙ্গে দেখা করবেন৷ এদিকে আবগারি দপ্তরের জেলা সুপার একলব্য চক্রবর্তী জানিয়েছেন, খড়গপুর শহরের চন্ডীপুরে এই বন্ধ থাকা মদের দোকান খোলার কোনও নির্দেশ নেই৷ তবে বিষয়টি আবগারি দপ্তরের কমিশনারের বিচারাধীন রয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন৷ জেলাশাসক পি মোহন গান্ধী অবশ্য জানিয়েছেন, বিষয়টি তাঁর জানা নেই।

[পুনর্বহালের ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই ফের অপসারিত সিবিআই প্রধান অলোক ভার্মা]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং