২৫ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  বৃহস্পতিবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

২৫ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  বৃহস্পতিবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

বিপ্লবচন্দ্র দত্ত, কৃষ্ণনগর: তৃণমূল কর্মীকে খুনের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়াল নদিয়ার চাপড়ায়। আহত হয়েছেন আরও দু’জন। তৃণমূলের অভিযোগ, বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরাই পরিকল্পনামাফিক তৃণমূল কর্মীদের উপর হামলা চালিয়েছিল। যদিও তৃণমূলের অভিযোগ ভিত্তিহীন বলেই দাবি করেছে স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্ব।

সোমবার সকালে চাপড়ার বেতবেড়িয়ার গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য সফিউদ্দিন শেখের বাড়ির সামনে তৃণমূল কর্মী রফিক শেখ, শামিম বিশ্বাস ও হাসান শেখের উপর চড়াও হয় বেশ কয়েকজন। বোমাবাজিও করা হয় বলে অভিযোগ। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় রফিকের। গুরুতর আহত হন শামিম বিশ্বাস ও হাসান শেখ। চাপড়ার তৃণমূল বিধায়ক রুকবানুর রহমান বলেন, বেশ কিছুদিন ধরেই এলাকা উত্তপ্ত ছিল। বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরাই তৃণমূলের নেতা কর্মীদের আক্রমণ করছে। সফিউদ্দিন শেখের অভিযোগ, এদিন সকালে তাঁর বাড়ির চড়াও হয়েছিল বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা। তাঁকে বাড়ি থেকে টেনে হিচড়ে বের করে আনার চেষ্টাও করা হয়। এরপরই তৃণমূল ও বিজেপি কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায় বলে অভিযোগ।

[আরও পড়ুন: সাঁওতালি মাধ্যমে প্রাথমিক শিক্ষার প্রশিক্ষণ চালুর দাবি, আদিবাসীদের অবরোধে স্তব্ধ ঝাড়গ্রাম]

যদিও বিজেপির বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ ভিত্তিহীন বলেই দাবি নেতা প্রকাশ অধিকারির। তিনি বলেন, কিছুদিন আগে তৃণমূল থেকে বেশ কয়েকজন বিজেপিতে এসেছিলেন। পরে তাঁরা আবার তৃণমূলে ফিরে যায়। এরপরই দলের মধ্যে অর্ন্তকলহ বাধে। সেই অশান্তির জেরেই এই ঘটনা বলে দাবি তাঁর। ঘটনার পর থেকেই থমথমে গোটা এলাকা। পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, সংঘর্ষের ঘটনায় একজনের মৃত্যু হয়েছে। দু’জন গুরুতর জখম অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। দ্রুতই অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের আশ্বাস দিয়েছেন তদন্তকারীরা। প্রসঙ্গত, লোকসভা নির্বাচনের পর থেকেই শাসক-বিরোধী সংঘর্ষে বারবার উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে নদিয়ার বিভিন্ন এলাকা। মৃত্যুর ঘটনাও ঘটেছে। তারপরও পরিস্থিতি যে এতটুকুও বদলায়নি। এদিনের ঘটনা তারই প্রমাণ। 

[আরও পড়ুন: কাটমানি নিলেই জেলবন্দি, অঞ্চল সভাপতিদের কড়া ভাষায় সতর্ক করলেন অনুব্রত]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং