৩ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  বুধবার ২০ নভেম্বর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

৩ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  বুধবার ২০ নভেম্বর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সুরজিৎ দেব, ডায়মন্ড হারবার: বছর চারেক আগে যুবতীটি ভালবেসে বিয়ে করেছিল এক যুবককে। একটি মেয়েও রয়েছে তাঁদের। কিন্তু স্বামীর সঙ্গে একঘেয়ে জীবন কাটাতে আর ভাল লাগছিল না বীরভুমের বোলপুরের বাসিন্দা বছর তেইশের ওই যুবতীর। অন্য এক যুবকের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠায় তাঁর সঙ্গেই পালিয়ে এসে নতুন ঘর বাঁধেন দক্ষিণ ২৪ পরগনার ঢোলাহাট থানার দিগম্বরপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের গুরুদাসপুরে। মঙ্গলবার সকালে ওই যুবতীর স্বামী জানতে পেরে মেয়েকে নিয়ে পূজার নতুন ঠিকানায় আসেন। জানাজানি হয়ে যায় সবকিছু। নতুন প্রেমিকের সঙ্গে পালিয়ে আসা ওই মহিলার শুরু হয়ে যায় গণধোলাই।

বোলপুরে কাজ করতে এসে চার বছর আগে যুবক শফিকুল ইসলামের সঙ্গে আলাপ হয়েছিল সেখানকার বাসিন্দা যুবতী পূজা ভাণ্ডারির। তারা বিয়ে করবে বলে ঠিক করে। পূজা বাড়িতে সেকথা জানালে পূজার অভিভাবকরা তা মেনে নেননি। তাই বাধ্য হয়ে শফিকুলের সঙ্গে রাতের অন্ধকারে পালিয়ে বিয়ে করে পূজা। নবদম্পতি সংসার পাতে দমদমে। পূজার নতুন নাম হয় মরিয়ম বিবি। এক কন্যাসন্তানের জন্ম দেয় তাঁরা। মেয়ের নাম রাখে জুলিয়া। ছোট্ট জুলিয়াকে নিয়ে বেশ চলছিল তাঁদের সংসার। কিন্ত হঠাৎই একদিন ওই দম্পতির মাঝে তৃতীয় পুরুষের আবির্ভাব হয়। দমদমে কাজ করতে আসা জয় জ্বালানির প্রেমে পড়ে হাবুডুবু খেতে থাকেন পূজা ওরফে মরিয়ম বিবি।

[আরও পড়ুন: ৫ মিনিটে তিন খুন! জিয়াগঞ্জের নৃশংস হত্যাকাণ্ডের বর্ণনা দিলেন পুলিশ সুপার]

দুর্গাপুজোর অষ্টমীর দিন স্বামী ও শিশুকন্যাকে ছেড়ে জয়ের হাত ধরে দমদম থেকে পালিয়ে যায় পূজা। আশ্রয় নেয় পাথরপ্রতিমা ব্লকের ঢোলাহাট থানার দিগম্বরপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের গুরুদাসপুর খালপাড়ে। মরিয়ম বিবি থেকে ফের তার নাম হয় পূজা। প্রেমিক জয়কে স্বামী পরিচয় দিয়ে গোপনে সেখানেই থাকছিল পূজা জ্বালানি। কিন্তু বিধি বাম। স্ত্রী ও তাঁর প্রেমিকের নতুন ঠিকানা জানতে পেরে পূজার স্বামী শফিকুল চার বছরের ছোট্ট জুলিয়াকে নিয়ে মঙ্গলবার সকালেই হাজির হয়ে যায় পূজার ঢোলাহাটের ঠিকানায়। সঙ্গে সঙ্গেই এলাকায় চাউর হয়ে যায় সে খবর। গ্রামের মহিলা ও পুরুষরাও মুহূর্তে সেখানে ভিড় জমান।

স্বামীর হাজার অনুরোধেও পূজা স্বামী শফিকুলের কাছে ফিরে যেতে অস্বীকার করে। সারাটা জীবন জয়ের সঙ্গেই কাটাতে চায় সে। আর তখনই শুরু হয়ে যায় পূজাকে গণধোলাই। কিন্তু কোনওভাবেই স্ত্রীকে বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে যেতে রাজি করাতে পারেনি শফিকুল। শেষে রণে ভঙ্গ দিয়ে ছোট্ট মেয়েকে কোলে তুলে ফিরে যেতে বাধ্য হয় সে।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং