৫ আশ্বিন  ১৪২৬  সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: একসময়ে কট্টর বামপন্থী হয়েও, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে কয়েক বছর আগে তৃণমূলে যোগ দিয়েছিলেন তিনি৷ রাজ্যের বৃত্তিমূলক শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ সংসদের সভাপতিও হয়েছিলেন৷ ২০১৪ ও ২০১৬-র নির্বাচনে ছিলেন শাসকদলের স্টার ক্যাম্পেনার৷ কিন্তু সম্প্রতি যেন সুর কেটেছে৷ এবারের একুশে জুলাইয়ের মঞ্চেও দেখা যায়নি অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষকে৷ কেন? ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষ৷ সাফ জানালেন, কাটমানির পালটা যে ব্ল্যাকমানির যে কথা বলেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো, তা যথার্থ নয়৷ কাটমানির বিকল্প ব্ল্যাকমানি হতে পারে না৷ একই সঙ্গে বিজেপিতে যোগদানের জল্পনাও জিইয়ে রাখলেন এই টলি অভিনেতা৷

[ আরও পড়ুন: ‘নারীবিদ্বেষী’ পরিচালকের ছবিতে সই! দীপিকার বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন নেটিজেনরা]

লোকসভা নির্বাচনে দলের খারাপ ফলাফলের পর এবারের শহিদ সমাবেশ ছিল শাসকদলের কাছে অন্যতম চ্যালেঞ্জ৷ যার মোকাবিলা তৃণমূল শিবির কতটা করতে পেরেছে তা নিয়ে নানান মতামত মিলছে৷ কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় হল, এবারের একুশে জুলাইয়ের মঞ্চে দেখা যায়নি শাসক ঘনিষ্ঠ একাধিক টলি তারকা বা শিল্পীকেই৷ যাঁদের মধ্যে অন্যতম রুদ্রনীল ঘোষ৷ অন্যান্য বছর যাঁকে মঞ্চ আলো করে বসে থাকতে দেখা যেত, এবার তিনি কোথায় গেলেন? দেখা মিলল না কেন তাঁর? উত্তরে শাসকদলের অস্বস্তি বাড়ালেন অভিনেতা রুদ্রনীল৷ জানালেন, ‘‘আমি তো কোনও রাজনৈতিক কর্মী না৷ আমি একটা সরকারের সমর্থক৷ সেখান থেকে মনে হয়েছিল গেলে ভুলটাকেই সমর্থন দেওয়া হবে৷ দলের সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কাছে যে খবরগুলো যায় তা ভুল অথবা অনেক সময় উনি কানে শুনে বিশ্বাস করেন৷ তিনি নিজেই কাটমানি শব্দটাকে নিয়ে আসেন৷ তারপর থেকেই সবাই টাকা ফেরত দিচ্ছে৷ ফলে সাধারণ মানুষ ভাবছে গোটা দলটা কাটমানিতে চলছে৷ কাটমানির বিকল্প ব্ল্যাকমানি হতে পারে না৷ এটা ভুল৷’’ এখানেই শেষ নয়, তিনি সাফ জানান, ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে শাসকদলের তারকা প্রচারকের তালিকায় তাঁর নাম ছিল না৷

মমতা ঘনিষ্ঠ অভিনেতার এহেন ভোলবদল একদিকে যেমন অস্বস্তি বাড়িয়েছে শাসকদলের৷ তেমনই, নির্বাচনের পর থেকেই তাঁর বিজেপিতে যোগদান নিয়ে জল্পনার পারদ চড়ছে, তাও গতি পেয়েছে৷ এবং সেই জল্পনায় জল না ঢেলেই সোমবার রুদ্রনীল বলেন, তিনি বিজেপিকে এখনও চিনে উঠতে পারেননি৷ কারণ, ক্ষমতায় না এসেই, বিজেপির কিছু নেতা তৃণমূলের একাংশের মতোই উগ্র ব্যবহার করছে৷ এমনকী, টলিউডেই বিজেপির দুটো গোষ্ঠী রয়েছে৷ তাই এখনও পদ্ম শিবিরে যোগদানের বিষয়ে তিনি কিছু ভাবছেন না বলেই জানান রুদ্রনীল ঘোষ৷ কিন্তু তাঁর ‘এখনও ভাবছি না’ কথাটাই রাজনৈতিক মহলে নয়া প্রশ্ন উত্থাপন করেছে৷ অনেকেই বলছেন, ‘‘এখনও নয় মানে কি ভবিষ্যতে হতে পারে?’’ এদিকে রুদ্রর এই মন্তব্যকে গুরুত্ব দিচ্ছে তৃণমূলও। দলের তরফে মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় মন্তব্য করেছেন, রুদ্রর কথা শোনা হবে। কেউ দল ছেড়ে যাবে না। 

[ আরও পড়ুন: ‘বিগ বস’ হাউসে বড়সড় চমক, আসছেন বিজেপির বিতর্কিত বিধায়ক! ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং