২৬ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  শুক্রবার ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: হৃতিক রোশনকে বেশি ভালবাসে বউ। তাঁর অন্ধ ভক্ত। সেই রাগে স্ত্রীর মাথা থেঁতলে খুন করে গাছে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত‌্যা করলেন স্বামী। বলিউডের ‘ক্রাইম-হরর’ সিনেমার গল্প এবার বাস্তবের রূপ পেল মুম্বই থেকে কয়েক হাজার কিলোমিটার দূরের আমেরিকায়।

বলিউড অভিনেতা হৃতিকের সিনেমা দেখতে বসলে স্বামী দীনেশ্বর বুধিদাতের (৩৩) সঙ্গে কথা বলা বন্ধ করে দিতেন নিউ ইয়র্ক সিটি বসবাসকারী ভারতীয় বংশোদ্ভূত তরুণী ডোনি ডোজয় (২৭)। হুঁশ থাকত না কোনও দিকে। সব সময় হৃতিকের সিনেমার গান শুনতেন। টিভিতে চলত ‘কহো না পেয়‌ার হ‌্যায়’ ‘কৃশ’, ‘জিন্দেগি না মিলেদি দোবারা’র মতো একের পর এক বলিউডের গ্রিক গডের সিনেমা। দীনেশ্বরের চেয়ে হৃতিকের চেহারা অনেক বেশি পেশিবহুল। তাঁর লুকও হৃতিকের মতো স্মার্ট নয়। এভাবে প্রায়ই দীনেশ্বরকে তাচ্ছিল‌্য করতেন পেশায় বার টেন্ডার ডোনি। তাঁর বন্ধুদের দাবি, বলিউড তারকাকে নিয়ে ডোনির এই পাগলামি দেখে হৃতিককে প্রবল হিংসা করতেন দীনেশ্বর। পুলিশ জানিয়েছে, গত শনিবার সন্ধ‌্যা সাড়ে সাতটা নাগাদ কাজ সেরে ফেরার পর খুন হন ডোনি। বন্ধুদের তিনি জানিয়েছিলেন, বাড়ি ফিরে একটি সিনেমা দেখবেন তিনি। স্ত্রীকে খুন করে শালিকে মোবাইলে এসএমএস করে দীনেশ্বর লেখেন, “আমি ডোনিকে খুন করেছি। অ‌্যাপার্টমেন্টের চাবি ফুলের টবের নিচে রাখা আছে।” স্ত্রীকে খুনের পর হাওয়ার্ড বিচের ধারে একটি গাছে গলায় দড়ি বেঁধে আত্মহত‌্যা করেন।

[ আরও পড়ুন: কপিল দেব না রণবীর সিং? বাইশ গজে ‘নটরাজ শট’ হাঁকিয়ে চমকে দিলেন অভিনেতা ]

ওজোন পার্কের যে নাইট ক্লাবে ডোনি কাজ করতেন সেখানকার গায়িকা মালা রামধানি জানিয়েছেন, “ডোনি আমাদের প্রায়ই বলত, ও বাড়িতে হৃতিক রোশনের সিনেমা দেখলেই ওর স্বামী হিংসা হত। হৃতিককে দেখলেই সে রেগে গিয়ে টিভি বন্ধ করে দিত। এই নিয়ে প্রায়ই ওদের ঝগড়া হত। সম্প্রতি ও হৃতিকের ‘সুপার ৩০’ ও ‘ওয়ার’ সিনেমা দেখে মুগ্ধ হয়ে গিয়েছিল। খুব মাতামাতি করছিল।” ডোনির আর এক বন্ধু ড‌্যান হ‌্যারিকের কথায়, “ডোনিকে প্রায়ই ওর স্বামী মারধর করত। সব সময় ওকে নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করত। ওকে প্রায়ই খুনের হুমকি দিত। আসলে ডোনিকে ভীষণ যৌন আবেদনময়ী দেখতে ছিল। তার উপর ও যেহেতু নাইট ক্লাবে কাজ করত, অনেক আয় করত তাই আরও বেশি সন্দেহ করত।”

পুলিশের সন্দেহ, ডোনি তাঁর স্বামীকে যত না গুরুত্ব দিতেন তার চেয়ে বেশি হৃতিক রোশনের মোহে আবিষ্ট হয়েছিলেন। এটাই সহ‌্য করতে পারেননি দীনেশ্বর। এছাড়া ডোনির সৌন্দর্যের জন‌্যও নিজে নিরাপত্তার অভাবে ভুগতেন।

[ আরও পড়ুন: ‘আমি বিচারপতি হলে অযোধ্যার রায়টা অন্যভাবে দিতাম’, কী বলতে চাইলেন তসলিমা? ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং