১ শ্রাবণ  ১৪২৬  বুধবার ১৭ জুলাই ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার
বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ

১ শ্রাবণ  ১৪২৬  বুধবার ১৭ জুলাই ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ ও হিংসার বিরুদ্ধে প্রতিবাদে শামিল হলেন বিশিষ্টজনেরা। রাজ্যে নিত্যদিন যে অশান্তি চলছে, তার বিরুদ্ধে ১৮ জুন সভার ডাক দিয়েছেন তাঁরা। উদ্যোক্তাদের মধ্যে রয়েছেন বিভাস চক্রবর্তী, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, রুদ্রপ্রসাদ সেনগুপ্ত ও শঙ্খ ঘোষের মতো মানুষ।

অভিযোগ উঠছে, ক্রমশ অশান্ত হচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ। রাজ্যে নিত্যদিন রাজনৈতিক অশান্তির বাড়বাড়ন্ত। এমন পর্যায়ে এসে রাজ্যে যাতে শান্তি ফিরে আসে, সেই চেষ্টা করছে সবাই। বাদ নেই বিশিষ্টজনরাও। এনআরএসের ঘটনা তাঁদের ভিতর থেকে নাড়া দিয়ে গিয়েছে। ক্রমাগত হামলার ঘটনা মেনে নিতে না পেরেই আন্দোলনের পথ বেছে নিয়েছেন জুনিয়র ডাক্তাররা। নাট্য সমাজও যে তার পাশে রয়েছে, তা নিয়ে স্পষ্ট মন্তব্য করেছেন রুদ্রপ্রসাদ সেনগুপ্ত ও বিভাস চক্রবর্তীর মতো ব্যক্তিত্ব।

[ আরও পড়ুন: ‘হিংসা নয়, আমার কলকাতা শান্তির শহর’, এনআরএস কাণ্ডে ডাক্তারদের পাশে প্রসেনজিৎ ]

নান্দীকারের তরফে জানানো হয়েছে, আগামী ১৮ জুন এনিয়ে এসভার ডাক দেওয়া হয়েছে। উদ্যোগ নিয়েছেন বিশিষ্ট কবি শঙ্খ ঘোষ। সেই সভায় উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে বিশিষ্টজনেদের। এখনও পর্যন্ত জানা গিয়েছে, বিভাস চক্রবর্তী, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, রুদ্রপ্রসাদ সেনগুপ্ত, সোহিনী সেনগুপ্তের মতো মানুষ উপস্থিত থাকবেন সভায়।

প্রসঙ্গত, এনআরএস কাণ্ডের পর আন্দোলনকারীদের উদ্দেশে কবি শঙ্খ ঘোষ লিখেছেন, “নানা কারণে, নানা অজুহাতে ডাক্তারদের গায়ে হাত তোলা হচ্ছে। লজ্জাজনক এই ঘটনা আবারও একবার প্রমাণ করে দিল যে, রাজ্যের অবস্থা কতটা ভয়াবহ দিকে মোড় নিচ্ছে। তবে ধর্মঘট চলুক।” কিন্তু তার পাশাপাশিই সাধারণ মানুষের কথা ভেবে যেন চিকিৎসা ব্যবস্থা দ্রুত চালু করা যায়, সে দিকটাও দেখতে বলেছিলেন কবি। জুনিয়র ডাক্তারদের একরকম পাশে দাঁড়িয়েই তাঁদের কাজে ফিরতে অনুরোধ করেছিলেন মাত্র। আর সে কারণেই কবির দিকে ধেয়ে এসেছে গালিগালাজ। তাঁর প্রতি এই আক্রমণ ডাক্তারদের মধ্যে থেকেই উড়ে আসছে কি না, তা নিয়ে তর্ক-বিতর্কে জড়াচ্ছেন নেটিজেনরা।

[ আরও পড়ুন: গায়ে হলুদের আসরে কেঁদে ফেলল মেয়ে, কী বললেন নুসরতের বাবা? ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং