BREAKING NEWS

১৪ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

বুদ্ধগয়ায় বিস্ফোরণের শব্দে থামল ধর্মগুরুর বক্তৃতা, দলাই লামাকে হত্যার ছক!

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 20, 2018 9:12 am|    Updated: January 20, 2018 9:12 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: তিব্বতি ধর্মগুরু দলাই লামার সফর ঘিরে তখন টানটান উত্তেজনা। কড়া পুলিশি নিরাপত্তার ঘেরাটোপ। তারই মাঝে শুক্রবার রাতে একটি বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল গয়া। প্রাণহানির কোনও খবর নেই। তবে তদন্তে নেমে দু’টি বোমা খুঁজে পেল পুলিশ। শনিবার সকালে এই খবর জানিয়েছেন পাটনার আইজি এন এইচ খান এবং পাটনা রেঞ্জের ডিআইজি বিনয় কুমার। তিনি আরও জানান, বুদ্ধগয়ার জনসভায় সবে মাত্র শেষ বক্তৃতা রাখছেন খোদ দলাই লামা। তখনই স্বল্প মাত্রায় একটি বিস্ফোরণ হয়। বিস্ফোরণের শব্দে থেমে যায় ধর্মগুরুর বক্তৃতা। সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ গোটা এলাকা ঘিরে ফেলে। প্রাথমিক তদন্তে জানা যায়, কলাচিন্তন মাঠের পাশে একটি বসেছিল ছোট একটি মেলা। যেখানে টুকটাক খাওয়ার ব্যবস্থাও ছিল। সেই মাঠের একটি তাঁবুতে ছিল রান্নার ব্যবস্থা। সেখানেই সেই ছোট বিস্ফোরণটি হয়েছিল বলে জানা গিয়েছে। সভা শেষে দলাই লামাকে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়। যে দলাই লামা সবসময় শান্তির বার্তাই দেন, তাঁর সভার পাশে এই বিস্ফোরণের ঘটনায় হতবাক ভক্তকুল। ধর্মগুরুর এক অনুরাগীর কথায়, “গয়ায় ঈশ্বরের আগমন হয়েছিল। কিন্তু সেটাও অনেকে মেনে নিতে পারছেন না।”

[নিয়ন্ত্রণরেখায় রেঞ্জার্সের গুলিবর্ষণের যোগ্য জবাব বিএসএফ-এর, হত ৪ পাক নাগরিক]

ঘটনার পরেই পুলিশ তল্লাশি শুরু করে গোটা এলাকার। তখনই উদ্ধার হয় আরও দু’টি বোমা। রাজ্য সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, দলাই লামার সভার পাশে এই বিস্ফোরণের ঘটনাকে লঘু করে দেখা হবে না। ফরেনসিক বিশেষজ্ঞদেরও খবর দেওয়া হয়েছে। দুষ্কৃতীদের উদ্দেশ্য নিয়ে সন্দিহান পুলিশ। ঘটনার পিছনে কোনও আন্তর্জাতিক চক্র কাজ করছে কি না তা খোঁজ নিয়ে দেখা হচ্ছে। নতুন বছরের প্রথম দিন অর্থাৎ পয়লা জানুয়ারি গয়ায় এসেছিলেন দলাই লামা। ছিলেনও এক মাস মতো। নতুন বছরের সেই অনুষ্ঠানে দলাই লামার আশীর্বাদ নিতে উপস্থিত ছিলেন বিহারের রাজ্যপাল সত্যপাল মালিক, মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার এবং হলিউডের অভিনেতা রিচার্ড গেয়ার। এর আগে ২০১৩ সালে মহাবোধি মন্দির কেঁপে উঠেছিল বিস্ফোরণে। দু’জন সন্ন্যাসী-সহ প্রাণ হারিয়েছিলেন পাঁচ জন। গৌতম বুদ্ধ এই মহাবোধি বৃক্ষের নিচে বসেই নির্বাণ লাভ করেছিলেন। গত বছর শেষের দিকে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের সঙ্গে অরুণাচল সফরে গিয়েছিলেন দলাই লামা। সেখামে তিনি অতীতের তিক্ততা ভুলে আগামীর দিকে এগোনোরই পরামর্শ দিয়ে দিয়েছিলেন। তিনি বলেন, “নানা ভাষা, নানা মতের ভারতে রাজনীতিকরা অনেকেই দুর্নীতিতে যুক্ত। চিনেও দুর্নীতি রয়েছে। নতুন প্রেসিডেন্ট সেই দুর্নীতি মোকাবিলায় অনেক চেষ্টা করছেন।” শুক্রবারের এই বিস্ফোরণে তাই চিনের হাত রয়েছে বলে বিশেষজ্ঞদের অনুমান।

[তোগাড়িয়ার পর এবার ‘হত্যার হুমকি’ শ্রী রাম সেনার প্রতিষ্ঠাতাকে]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement