৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

যৌন হেনস্তা থেকে নাবালিকাকে বাঁচিয়ে পুরস্কৃত জয়পুরের ৪ কিশোর

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: July 6, 2019 5:06 pm|    Updated: September 8, 2020 1:12 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: শিশু-কিশোরীদের যৌন হেনস্তা নিয়ে কত খবরই না শিরোনামে আসে৷ ঘটনা জঘন্য হলেও, সচেতনতা প্রচারের স্বার্থে সেসব সামনে আনতেই হয়৷ এবার এমনই ঘটনার অন্য একটি দিক দেখা গেল, যা সত্যিই সচেতনতার পরিচায়ক৷ এক নাবালিকাকে যৌন নিগ্রহের হাত থেকে বাঁচাতে খেলা ফেলে ছুটে গেল জনা কয়েক কিশোর৷ তার জন্য তাদের পুরস্কৃত করা হল পুলিশের তরফে৷

[আরও পড়ুন: নিরাপত্তারক্ষীদের সঙ্গে গুলির লড়াই, ছত্তিশগড়ে খতম ৪ মাওবাদী]

ঘটনা ঘটেছে বৃহস্পতিবার, রাজস্থানের জয়পুরে৷ বিকেলে ক্রিকেট খেলছিল বছর পনেরোর মণীশ, বাদল৷ সঙ্গে ছিল দুই দাদা আঠেরো বছরের অমিত আর রোহিত৷ আচমকাই তাদের কানে আসে এক মেয়ের চিৎকার৷ সেই শব্দের সূত্র ধরে ব্যাট, বল মাঠে ফেলেই এই চার কিশোর ছুটে যায় ঘটনাস্থলে৷ পৌঁছে দেখে, একটি টিলার পিছনে ওই মেয়েটিকে নিয়ে গিয়ে এক ব্যক্তি যৌন নিগ্রহ করছে৷ চারজন তা দেখে আর বিন্দুমাত্র দেরি করেনি৷ সঙ্গে সঙ্গে গিয়ে ওই ব্যক্তি আটকে মেয়েটিকে বাঁচায়৷ ওই ব্যক্তি পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাকেও হাতেনাতে ধরে ফেলে সোজা থানায় নিয়ে গিয়ে হাজির হয়৷

এই ঘটনার জেরে জয়পুরে শোরগোল পড়ে যায়৷ একদিকে যেমন এই চারজনের অসম সাহসিকতা প্রশংসা কুড়িয়েছে, তেমনই ওই ব্যক্তিরও মুণ্ডপাত করছেন সকলে৷ ধৃতের উপযুক্ত শাস্তির দাবিতে থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভেও শামিল হতে দেখা গেল অনেককে৷ যার জেরে আবার পরিস্থিতি এতটাই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে যে অশান্তি এড়াতে বন্ধ করে দেওয়া হয় ইন্টারনেট সংযোগ৷ তবে মেয়েকে এভাবে যৌন নিগ্রহের হাত থেকে বাঁচিয়ে দেওয়ায় অমিত, রোহিত, মণীশ, বাদলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন নাবালিকার মা-বাবা৷

[আরও পড়ুন:বিতর্ক পিছনে ফেলে সেপ্টেম্বরের মধ্যেই বায়ুসেনার হাতে আসছে রাফালে যুদ্ধবিমান]

চার কিশোরের এই কাজ অবশ্য শুধু প্রশংসিত হয়েই থাকেনি৷ অভিযুক্তকে সরাসরি পুলিশের হাতে তুলে দেওয়ার জন্য অফিসারদের নজরে পড়েছে এরা৷ জয়পুরের এডিজি, পুলিশ বি কে সোনি বিবৃতি দিয়ে অমিত, রোহিত, মণীশ, বাদলদের কথা জানিয়েছেন৷ তাদের এই সাহসিকতাকে সামনে আনতে দেওয়া হয়েছে সংবর্ধনা৷ একটি স্মারক এবং কিছু নগদ টাকা দেওয়া হয়েছে পুরস্কার হিসেবে৷ এডিজির কথায়, ‘এত কম বয়সে ওরা একজন প্রকৃত নাগরিকের মতো দায়িত্ব পালন করেছে৷ ওদের ভবিষ্যৎ আরও উজ্জ্বল হোক, আরও অনেক দৃষ্টান্ত স্থাপন করুক ওরা, এই শুভেচ্ছা রইল৷’ সত্যি, যৌন নিগ্রহ, ধর্ষণের হাজারও খবরের মাঝে এমন সংবাদই বোধহয় আশা জাগিয়ে রাখে৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement