১৪ মাঘ  ১৪২৬  মঙ্গলবার ২৮ জানুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুব্রত বিশ্বাস: ট্রেনের সুরক্ষার দায়িত্ব যাঁদের হাতে তাঁরাই কিনা বেআইনি কাজকর্মে লিপ্ত। এই অপরাধে পূর্ব মধ্য রেলের কোডারমা পোস্টের আরপিএফ ইন্সপেক্টর-সহ আট আরপিএফ অফিসার ও কনস্টেবলকে থানা থেকে সরালেন আইজি। এদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, ধানবাদ-গয়া শাখা দিয়ে চলাচলকারী বিভিন্ন যাত্রীবাহী ট্রেনে মদ পাচারের সুযোগ করে দিত।

বিহারে মদ নিষিদ্ধ হওয়ার পর সেই রাজ্যে মদের চাহিদা বেশ ভাল রকম। আর এখানে মদ পাচার এখন এক বড়সড় আয়ের পথ। আর এই পথকে সুগম করে দেদার টাকা আয় করছেন এক শ্রেণির আরপিএফ। গয়া শাখার ট্রেনগুলিতে এই মদ পাচার এক রেওয়াজে পরিণত হয়েছে। যাত্রীর বারবার অভিযোগ করেও সুরাহা পাননি বলে জানা গিয়েছে। তিতিবিরক্ত হয়ে যাত্রী এক সময় ছবি তুলে তা ঊর্ধ্বতনদের কাছে পাঠান।

[ আরও পড়ুন: ইভিএমে ইয়েদুরাপ্পার ভাগ্য, ১৫ আসনের উপনির্বাচন নিয়ে চিন্তায় গেরুয়া শিবির ]

এর পর ইসি রেলের আইজি তদন্তে নামেন। আরপিএফ কর্মীদের সিইউজি মোবাইল ট্যাগ করে জানাতে পারেন কোডারমা আরপিএফ পোস্টের ইন্সপেক্টর সঞ্জয় কুমার, এসআই চন্দন কুমার, মনোজ কুমার, হাবিলদার বীরেন্দ্র রায়, জওয়ান অনিল কুমার, অংশু কুমার, প্রহ্লাদ কুমার, অজিত সিং, শিবশঙ্কর প্রসাদ এই মদ পাচারকারীদের সঙ্গে সখ্য রাখছেন। এর পরেই ইসি রেলের আরপিএফের ডিআইজি রবীন্দ্র বর্মা অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন। এর পরেই ইন্সপেক্টর-সহ আট জন অফিসার ও কনস্টেবলকে ক্লোজ করা হয় বিভাগীয় ভাবে।

[ আরও পড়ুন: শিয়রে সংকট, সার্বিক বৃদ্ধির পূর্বাভাসও কমিয়ে দিল রিজার্ভ ব্যাংক ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং