BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

জঙ্গি নিধনে ফের বড় সাফল্য, কাশ্মীরে খতম পাঁচ জেহাদি

Published by: Paramita Paul |    Posted: June 10, 2020 8:51 am|    Updated: June 10, 2020 2:22 pm

An Images

সোমনাথ রায়, নয়াদিল্লি: ফের গুলির লড়াইয়ে উত্তপ্ত দক্ষিণ কাশ্মীরের সোপিয়ান এলাকা। যৌথবাহিনীর অভিযানে খতম পাঁচ সন্ত্রাসবাদি। তবে তাদের পরিচয় এখনও জানা যায়নি। শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী, সোপিয়ান জেলার সুগো হেন্দমা এলাকায় অভিযান চলছে। বাকি জঙ্গিদের খোঁজে তল্লাশি চলছে। প্রসঙ্গত, গত চারদিনে মোট ১৪ জেহাদিকে নিকেশ করল যৌথবাহিনী। এদিনের অভিযানে কোনও জোয়ান হতাহত হননি। উদ্ধার হয়েছে প্রচুর অস্ত্রও।

রবিবার থেকেই সোপিয়ানের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালাচ্ছে যৌথবাহিনী। দক্ষিণ কাশ্মীরের সোপিয়ান এলাকায় বহু জেহাদি ওঁৎ পেতে রয়েছে বলে খবর পায় যৌথবাহিনী। বুধবার ভোর রাতে খবর আসে সুগো হেন্দমা এলাকায় ঘাঁটি গেড়েছে জঙ্গিরা। এরপর আর সময় নষ্ট করেনি সিআরপিএফ, কাশ্মীর পুলিশ ও সেনা জওয়ানরা। ভোরের আলো ফোটার আগেই গোটা এলাকা ঘিরে ফেলেন তাঁরা। জেহাদিদের আত্মসমপর্ন করতে বলেন তাঁরা। কিন্তু সেই কথাই কান দেয়নি লুকিয়ে থাকা জঙ্গিরা। বরং যৌথবাহিনীকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়তে থাকে তারা। জবাব দেয় বাহিনীও। শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী, পাঁচ অজ্ঞাত পরিচয় জঙ্গিকে নিকেশ করেছে যৌথবাহিনী। বাকিদের খোঁজে চলছে তল্লাশি অভিযান। এদিকে অশান্তির আশঙ্কায় সোপিয়ানে বন্ধ ইন্টারনেট পরিষেবা।

[আরও পড়ুন : রাজস্থানে সরিয়েও হল না শেষরক্ষা! হোটেল থেকে ‘পলাতক’ গুজরাটের ৩ কংগ্রেস বিধায়ক]

প্রসঙ্গত, রবি ও সোমবারেরর অভিযানে ৯ জেহাদিকে খতম করেছিল বাহিনী। এরপর ফের দক্ষিণ কাশ্মীরের এই এলাকায় অভিযান চালিয়ে সাফল্য পেল তারা। সোমবার কাশ্মীর পুলিশের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী,  গত ছ’মাসে মোট ৯৩ জন জঙ্গিকে নিকেশ করা গিয়েছে। গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে সীমান্ত বরাবর গজিয়ে ওঠা ৫০০ লঞ্জপ্যাড। বানচাল হয়েছে পুলওয়ামার কায়দার হামলার ছক। সব মিলিয়ে গত কয়েকদিনে ভূস্বর্গে জঙ্গি দমনে বড়সড় সাফল্য পেয়েছে যৌথবাহিনী। 

 

[আরও পড়ুন : পরীক্ষা ছাড়াই দশম ও একাদশ শ্রেণির সব পড়ুয়া পাশ, ঘোষণা তামিলনাড়ু সরকারের]

এদিকে নৌসেনা সেক্টরে ফের সংঘর্ষ বিরতি লঙ্ঘন করেছে পাক সেনা। চলছে গুলিগোলা। পালটা জবাব দিচ্ছে ভারতীয় সেনাও। জানা গিয়েছে, বুধবার সকাল সাড়ে সাতটা থেকে সীমান্তে গুলি চালাতে শুরু করে পাকিস্তানি জওয়ানরা।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement