BREAKING NEWS

৮ আষাঢ়  ১৪২৮  বুধবার ২৩ জুন ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

অক্সিজেনের ঘাটতিতে সরকারি হাসপাতালে একরাতে চার রোগীর মৃত্যু, অভিযোগে তোলপাড় তেলেঙ্গানা

Published by: Paramita Paul |    Posted: July 12, 2020 1:58 pm|    Updated: July 12, 2020 1:58 pm

four patients died within one night due to lack of oxygen in Telegana

ফাইল ছবি

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সরকারি হাসপাতালে একরাতে চারজন রোগীর মৃত্যু। তাঁদের মধ্যে তিনজন করোনা (Covid-19) আক্রান্ত ছিলেন। অভিযোগ, অক্সিজেনের ঘাটতির জেরেই চার রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এই অভিযোগের জেরে তোলপাড় তেলেঙ্গানা (Telegana)। যদিও অক্সিজেনের ঘাটতির অভিযোগ অস্বীকার করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তাঁরা জানিয়েছে. অক্সিজেনের ঘাটতি ছিল না। বরং শারীরিক অসুস্থতার কারণেই তাঁদের মৃত্যু হয়েছে।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, নিজামাবাদ সরকারি হাসপাতালে (Nizamabad government hospital) একরাতে চার রোগী মারা গিয়েছেন। ওই চার জনের মধ্যে তিন জনই কোভিড রোগী (Covid-19)। অভিযোগ, প্রয়োজনের সময় তাঁদের অক্সিজেন দেওয়া যায়নি। যদিও হাসপাতালের তরফে অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে।

[আরও পড়ুন : ‘ড্রাই স্টেট’ গুজরাটে প্রকাশ্যে মদের পার্টি বিজেপি নেতার! অস্বস্তিতে গেরুয়া শিবির]

অভিযোগ প্রসঙ্গে হাসপাতালের সুপার ডাক্তার নাগেশ্বর রাও জানান, অক্সিজেন ঘাটতির অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা। ডায়াবেটিস, হাইপারটেনশনের মতো কো-মরবিডের (Co-morbid conditions) কারণে তিনজন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। তাঁর আরও দাবি, তাঁদের হাসপাতালে অক্সিজেন সরবরাহের জন্য সেন্ট্রালাইজড স্বয়ংক্রিয় সিস্টেম রয়েছে। এমনকী, অক্সিজেন সিলিন্ডার খালি হচ্ছে কি না, তা আগাম বোঝার জন্য বিশেষ সেন্সরের ব্যবস্থা করা আছে। ফলে অক্সিজেনের ঘাটতিতে কোনও রোগীর মৃত্যু হতে পারে না। তবে, তিন করোনা রোগীরই যে শ্বাসকষ্ট ছিল, তা অস্বীকার করেননি হাসপাতাল সুপার।

[আরও পড়ুন : মানবিকতার নজির, দিল্লিতে প্লাজমা দিলেন করোনাজয়ী নিউজিল্যান্ডের ইউটিউবার]

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার রাতে এক থেকে দেড় ঘণ্টার ব্যবধানে তিনজনের মৃত্যু হয়। রাত ১১, ১২টা ও দেড়টায়। চতুর্থ জনকে মৃত অবস্থাতেই হাসপাতালে আনা হয়েছিল বলে তিনি দাবি করেন। মৃতরা প্রত্যেকেই তেলেঙ্গানার নিজামাবাদ জেলার।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement