BREAKING NEWS

৪ মাঘ  ১৪২৭  সোমবার ১৮ জানুয়ারি ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

বিলাসবহুল গাড়ি প্রত্যাখ্যান, কৃষকদের সমর্থনে ট্রাক্টর চড়ে বিয়ের আসরে হরিয়ানার যুবক

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: December 4, 2020 5:11 pm|    Updated: December 4, 2020 5:15 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: যাঁদের শ্রমে দু’বেলা দু’মুঠো খাবারে পেট ভরে, তাঁরাই আজ সবচেয়ে বিপন্ন। কেন্দ্রের নতুন কৃষি আইন প্রত্যাহারের দাবিতে দিল্লির দরবারে মরণপণ আন্দোলনরত কৃষকদের পাশে তাই একে একে এসে দাঁড়াচ্ছেন অনেকেই। তবে হরিয়ানার (Haryana) কার্নালের বিয়ের পাত্র যেভাবে কৃষক আন্দোলনকে সমর্থন করলেন, তা অভিনবই বটে। বিলাসবহুল গাড়ি ছেড়ে ট্রাক্টর (Tractor) নিয়ে চলে গেলেন বিয়ে করতে। বোঝালেন, এই ট্রাক্টর কৃষিকাজের প্রতীক, এটাই কৃষক আন্দোলনকে (Farmers’ Protest) সমর্থনের প্রতীক।

কার্নালের সেক্টর -৬’এর বাসিন্দা সুমিত ধুল। বিয়ের জন্য পাত্রীপক্ষের তরফে সুন্দর ফুল দিয়ে সাজানো মার্সিডিজ পাঠানো হয়েছিল তাঁর কাছে। কিন্তু তা প্রত্যাখ্যান করেন সুমিত। বদলে ট্রাক্টরে চড়ে পৌঁছে যান বিয়ের আসরে। পাত্রকে এভাবে দেখে তো সবাই অবাক! তখনই সকলকে ট্রাক্টরে সওয়ার হওয়ার ব্যাখ্যা দেন পাত্র।

[আরও পড়ুন: নাগরোটা সংঘর্ষের ১৫ দিন পর NIA’র হাতে তদন্তভার তুলে দিল কেন্দ্র]

তিনি জানান, ”আমরা এখন শহরে থাকি। কিন্তু আমাদের শিকড় কৃষিকাজেই যুক্ত। তাই কৃষকদের কোথায় কতটা প্রাধান্য পাওয়া উচিত, তা আমি বুঝি। ট্রাক্টরে চড়ে আমি বোঝাতে চাই যে সাধারণ মানুষও কৃষকদের পাশেই আছেন, তাঁদের প্রতি বিরাট জনসমর্থন রয়েছে।” জানিয়েছেন, বিয়ের পর স্ত্রীকে নিয়ে হরিয়ানা-দিল্লি সীমানা, যেখানে কৃষকরা আন্দোলন করছেন, সেখানে যাবেন তিনি। সরাসরি তাঁদের পাশে দাঁড়াবেন।

[আরও পড়ুন: দিল্লিতে আন্দোলনরত কৃষকদের সঙ্গে সাক্ষাৎ ডেরেকের, ফোনে কথা বললেন মমতাও]

সুমিতের আত্মীয়রা জানিয়েছেন, বিয়ে উপলক্ষে একাধিক দামি গাড়ি সাজানো হয়েছিল বর এবং বরযাত্রীদের জন্য। কিন্তু সুমিত গোড়া থেকেই এতে আপত্তি তুলেছিলেন। বারবার বলছিলেন যে এসব গাড়ি দরকার নেই, তিনি ট্রাক্টরে চড়ে যাবেন বিয়ে করতে। শেষ পর্যন্ত তিনি সেটাই করলেন। সুমিতের এক কাকার কথায়, ”কৃষকদের পাশে থাকার বার্তা দিতে এটা খুবই সামান্য একটা পদক্ষেপ।” তবে বিয়ের আনন্দে মশগুল হয়ে যে সুমিত নিজের শিকড় এবং কৃষকদের অবদানের ভুলে যাননি, বরং বিয়েতেও তাঁদের জন্য কিছু একটা করার কথা ভেবেছেন, এ বড় কম পাওয়া নয়। এমনই মত তাঁর আত্মীয়দের একাংশের। শুধু আত্মীয়দের খুশি হওয়াই নয়, সুমিতের মতো তরুণ প্রজন্মের এক প্রতিনিধির এই উদ্যোগ শিক্ষণীয়ও বটে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement