১৫ চৈত্র  ১৪২৬  রবিবার ২৯ মার্চ ২০২০ 

Advertisement

‘কেজরিওয়াল নায়ক ২’, রামলীলা ময়দান ছেয়ে গিয়েছে অনুরাগীদের পোস্টারে

Published by: Subhamay Mandal |    Posted: February 16, 2020 11:48 am|    Updated: February 16, 2020 11:48 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বলিউডের ‘নায়ক’ ছবির কথা মনে আছে? একদিনের মুখ্যমন্ত্রী ‘শিবাজি রাও’ অনিল কাপুর রাস্তায় নেমে আমলাতান্ত্রিক সরকারের ঘুঘুর বাসা ভেঙে নিজের কর্তব্য পালন করেছিলেন। রিল লাইফের সেই মুখ্যমন্ত্রীর প্রতিচ্ছবিই যেন রিয়েল লাইফের অরবিন্দ কেজরিওয়াল। দুর্নীতিমুক্ত সমাজ তিনিই গড়তে পারেন, এনটাই আশা আম আদমি পার্টির অগুনতি কর্মী-সমর্থকের। তাই তো দিল্লির রামলীলা ময়দানে শপথগ্রহণের মঞ্চে ছেয়ে গিয়েছে পোস্টার, ‘কেজরিওয়াল নায়ক ২’।

কেন ‘নায়ক’ ছবির সঙ্গে তুলনা? আদতে সমর্থকদের মতে, পর্দার শিবাজি রাও এবং অরবিন্দ কেজরিওয়ালের উত্থান একইরকম। আম আদমি থেকে মুখ্যমন্ত্রী, এই যাত্রাপথ দুজনের মোটামুটি একই। দুর্নীতিমুক্ত গড়ে তোলার জন্য পথে নেমে আন্দোলন করেছিলেন কেজরি। তারই ফলস্বরূপ দিল্লিবাসীর হৃদয়ের মণিকোঠায় স্থান পেয়েছেন তিনি। তাও তিন-তিনবার। রাস্তায় নেমে জনগণের মধ্যে থেকে কাজ করেন কেজরিওয়াল, এমনটাই বলছে দিল্লি।

[আরও পড়ুন: সাফাইকর্মী থেকে অটোচালক, ‘আম আদমি’দের নিয়েই শপথ নেবেন কেজরিওয়াল]

রবিবার তৃতীয়বারের জন্য দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেবেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল। শপথের মঞ্চে সমাজের ‘আম আদমি’দেরই প্রাধান্য দিচ্ছেন কেজরিওয়াল। তাই সাফাইকর্মী, অটো-বাস-মেট্রো চালক, বিভিন্ন স্কুলের অশিক্ষক কর্মীরা কেজরিওয়ালের শপথগ্রহণের মঞ্চে হাজির থাকবেন। শনিবার সাংবাদিক বৈঠক করে এমনটাই জানিয়েছেন দিল্লির প্রাক্তন উপমুখ্যমন্ত্রী তথা আপ নেতা মণীশ শিসোদিয়া। তিনি বিভিন্ন স্কুলের পড়ুয়াদেরও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানের মঞ্চে আম জনতার উপস্থিতি এক নজিরবিহীন ঘটনা।

তবে রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরা মঞ্চে থাকছেন না এমনটা নয়। দিল্লিকেন্দ্রিক শপথগ্রহণের মঞ্চ করা হচ্ছে। কোনও বিরোধী নেতা-নেত্রীকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি অনুষ্ঠানে। কিন্তু আমন্ত্রণ করা হয়েছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে। তিনি আসবেন কিনা সে বিষয়ে কোনও সবুজ সংকেত দেয়নি প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর। রবিবার কাশীতে জঙ্গমওয়াড়ি মঠের অনুষ্ঠানে গিয়েছেন মোদি। তাই কেজরির শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে তাঁর উপস্থিতি নিয়ে সংশয় রয়েছে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement