BREAKING NEWS

৭  আশ্বিন  ১৪২৯  মঙ্গলবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

এক সংঘসেবকের পরাক্রমই ফিরিয়ে আনল অভিনন্দনকে, স্মৃতির মন্তব্যে বিতর্ক

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: March 2, 2019 12:05 pm|    Updated: March 2, 2019 12:05 pm

PM ensures Abhinandan;s return: Smriti

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির পরাক্রমেই দেশে ফিরে এলেন উইং কম্যান্ডার অভিনন্দন বর্তমান। মন্তব্য কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানির। স্মৃতি বলেন, আজ আরএসএস গর্বিত। সংঘের একজন সেবকের পরাক্রমেই দেশে ফিরে এলেন ভারতীয় বায়ুসেনার বীর উইং কম্যান্ডার অভিনন্দন বর্তমান। এর আগেই বিজেপির বিরুদ্ধে জাতীয় নিরাপত্তার ইস্যু নিয়ে রাজনীতি করার অভিযোগ তুলেছে বিরোধীরা। স্মৃতির মন্তব্যে তা নতুন মাত্রা পাবে বলেই মত রাজনৈতিক মহলের।

[পাকিস্তানের ৮৭% শতাংশ ভূখণ্ডের উপর নজর রাখছে ভারতের ‘অদৃশ্য চোখ’]

এর আগে কর্ণাটকের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা বিজেপির বর্ষীয়ান নেতা ইয়েদুরাপ্পা বলেছিলেন, “বায়ুসেনার এই সার্জিক্যাল স্ট্রাইক কর্ণাটকে বিজেপিকে ২২টি আসন জিততে সাহায্য করবে।” ইয়েদুরাপ্পার সেই মন্তব্য নিয়ে বিতর্ক কম হয়নি। এরই মধ্যে বিজেপির জোটসঙ্গী এআইএডিএমকে নেতা ও পনিরসেলভম মোদির প্রশংসা করে বলেন, প্রধানমন্ত্রী নৃসিংহাবতার নিয়ে ধ্বংস করেছেন বলে মন্তব্য করেন। তা নিয়েও শুরু হয়েছে বিতর্ক। তার মধ্যেই স্মৃতি ইরানির নয়া মন্তব্য। একটি বইপ্রকাশের অনুষ্ঠানে গিয়ে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বলেন, “একজন সংঘসেবকের সাহসিকতাই দেশে ফিরিয়ে আনল অভিনন্দন বর্তমানকে।” তিনি আরও বলেন, “আজ আরএসএসের গর্ব হওয়া উচিত। সংঘের এক সেবকের সাহসিকতায় মাত্র ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে দেশে ফিরতে পারলেন ভারতের ভূমিপুত্র।” স্মৃতি কারও নাম না করলেও, তিনি যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির প্রশংসাই করেছেন তা বোঝার জন্য বিশেষজ্ঞ হতে হয় না।

[পাকিস্তানের অস্ত্রের জোগান আটকাতে তৎপর নয়াদিল্লি, তৈরি ব্লু-প্রিন্ট]

উল্লেখ্য, পাকিস্তানের ভারতীয় বায়ুসীমা ভেদ করার অপচেষ্টা রুখতে গিয়ে পাক সেনার হাতে ধরা পড়েন উইং কম্যান্ডার অভিনন্দন বর্তমান। ভারতের কূটনৈতিক চাপে গতকালই তাঁকে দেশে ফেরাতে বাধ্য হয়েছে পাক সরকার।আর তা নিয়েই শুরু হয়েছে রাজনীতি। সেনা বা সার্জিক্যাল স্ট্রাইক নিয়ে রাজনীতি নয়, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন। একই কথা বলেছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীও। সরকার এবং বিরোধী দু’পক্ষই পরস্পরের বিরুদ্ধে রাজনীতি করার অভিযোগ এনেছে। যদিও, দু’দলের শীর্ষনেতারাই সেনার সাফল্য নিয়ে রয়েসয়ে পদক্ষেপ করছেন। কিন্তু এরই মধ্যে বিতর্ক ছড়ালেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে