BREAKING NEWS

১৪ মাঘ  ১৪২৮  শুক্রবার ২৮ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

আরও এক নীরব মোদি! ৮০০ কোটি ঋণখেলাপ করে উধাও Rotomac মালিক

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: February 18, 2018 8:51 am|    Updated: February 18, 2018 8:51 am

Rotomac Pens Owner 'Flees' After Taking Rs 800 Crore from Govt-run Banks

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: নীরব মোদি নিয়ে যখন দেশ তোলপাড় তখন কৌশলে পগারপার আরও এক শিল্পপতি। কায়দাও সেই এক। ব্যাংক থেকে বিপুল পরিমাণ ঋণ নিয়ে উধাও হয়ে যাওয়া। স্টেশনারি ব্রান্ড রোটোম্যাকের মালিক বিক্রম কোঠারির বিরুদ্ধে ৮০০ কোটি টাকা ঋণ খেলাপের অভিযোগ উঠেছে।

[পালাতে পারেন প্রণয় রায়, NDTV-র কর্ণধারের বিরুদ্ধে লুক আউট নোটিস জারির দাবি স্বামীর]

বিপুল পরিমাণ ঋণ রোটাম্যাকের মালিক পাঁচটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক থেকে নেন। সূত্রের খবর, এলাহাবাদ ব্যাংক, ব্যাকং অফ বরোদা, ইন্ডিয়ান ওভারসিজ ব্যাংক এবং ইউনিয়ন ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া কোঠারিকে লোন দেওয়ার জন্য নাকি বেশ কিছু নিয়মও শিথিল করে। ইউনিয়ন ব্যাংক থেকে কোঠারি নিয়েছিলেন ৪৮৫ কোটি আর এলাহাবাদ ব্যাংক থেকে ধার পেয়েছিলেন ৩৫২ কোটি। এক বছর পেরিয়ে গেলেও সুদ বা আসল, কোনওটাই ফেরত দেননি রোটোম্যাক কর্ণধার। ব্যাংকের তখন ঘুম ভাঙে। এরপরই কোঠারির কানপুরের অফিসে অজ্ঞাত কারণে তালা পড়ে যায়। বেপাত্তা হয়ে যান বিক্রম কোঠারি। বর্তমানে বিক্রম কোথায় রয়েছেন, সে বিষয়েও কোনও হদিশ নেই। সূত্রের খবর, রোটোম্যাকের মালিক দেশ ছেড়েছেন।

[নীরব মোদির প্রচারে শামিল, প্রিয়াঙ্কার পর পালাবার পথ খুঁজছেন সিদ্ধার্থও]

পেন ব্যবসায় বিপ্লব এনে দেওয়া বিক্রম কোঠারির বায়োডেটা ঈর্ষণীয়। নামী গুটখা প্রস্তুতকারক সংস্থা পান পরাগের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন বিক্রমের বাবা মনসুখ ভাই কোঠারি। মনসুখের মৃত্যুর পর রোটোম্যাক ব্র্যান্ড তৈরি করে পেন, খাতা, কাগজ এবং গ্রিটিংস কার্ডের ব্যবসা শুরু করেন বিক্রম। ১৯৯২ সালে রোটোম্যাক তৈরি হওয়ার কয়েক বছরের মধ্যে তা দেশের শিল্প মানচিত্রে জায়গা করে নেয়। এই সুবাদে বিভিন্ন ব্যাংক থেকে ঋণ পেতে থাকেন বিক্রম। একবার প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ি বিক্রমকে সম্মানিতও করেছিলেন। অভিযোগ, যাবতীয় নিয়মকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে বিক্রমকে বিশাল অঙ্কের ঋণ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু, এখন বিক্রম বা তাঁর কোম্পানির পক্ষ থেকে ঋণের কোনও টাকা মেটানো হয়নি। ইউনিয়ন ব্যাঙ্ক সূত্রে জানা গিয়েছে বিক্রম ৪৮৫ কোটি টাকা শোধ না করায় তাঁর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। এলাহাবাদ ব্যাংকের ম্যানেজার রাজেশ গুপ্ত বলেন, রোটোম্যাকের মালিক ব্যাংক থেকে ৩৫২ কোটি টাকা ঋণ নিলেও তা শোধ করেননি। বিক্রমের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে বকেয়া টাকা আদায় করা হবে।

[নজরে পড়ার আগেই দেশ ছেড়ে চম্পট মোদির, বাজেয়াপ্ত ৫১০০ কোটির সম্পত্তি]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে