BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বেচাল দেখলেই কড়া ব্যবস্থা, তৃণমূল প্রতিনিধিদের উদ্দেশে হুঁশিয়ারি অসমের মন্ত্রীর

Published by: Sulaya Singha |    Posted: August 2, 2018 12:13 pm|    Updated: August 2, 2018 12:13 pm

An Images

মণিশংকর চৌধুরি, গুয়াহাটি: এনআরসি-র দ্বিতীয় খসড়া প্রকাশ হওয়ার পরই বিরোধিতায় সরব হয়েছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জানিয়েছিলেন অসমে গিয়ে পরিস্থিতি খতিয়ে দেখবে তৃণমূলের প্রতিনিধি দল। সেইমতো আজ, বৃহস্পতিবার অসমে যাচ্ছেন তৃণমূলের প্রতিনিধিরা। তৃণমূলের প্রতিনিধি দলে থাকছেন ফিরহাদ হাকিম, সুখেন্দুশেখর রায়, কাকলি ঘোষ দস্তিদার, রত্না দে নাগ, নাজিমুল হক, অর্পিতা ঘোষ প্রমুখ। আজ বরাক উপত্যকা পরিদর্শনে আসছেন তাঁরা। আর তার আগেই অসম সরকারের তরফে সাফ জানিয়ে দেওয়া হল, তাঁদেরকে কড়া নজরদারিতে রাখা হবে।

[ভারতীয় সেনার পরিকাঠামো উন্নয়নে ৭২ কোটি টাকা বরাদ্দ কেন্দ্রের]

আজ বরাক উপত্যকা পরিদর্শনের কথা তাঁদের। শুক্রবার গুয়াহাটি পৌঁছাবে দল। তাঁদের উপর নজরদারির জন্য ইতিমধ্যেই বিশেষ দল গঠন করেছে অসম সরকার। সেখানে পুলিশ এবং সিআইডি-র শীর্ষকর্তারা থাকবেন বলে খবর। অসম পৌঁছনোর আগে রীতিমতো হুঁশিয়ারির সুরেই রাজ্যের উদ্যোগ মন্ত্রী চন্দ্রমোহন পাতোয়ারি বলেছেন, “প্রতিনিধি দলকে নজরে রাখা হবে। যে কোনওরকম বেচাল দেখলেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।” এদিকে গোপন সূত্রে খবর, এদিন শিলচর বিমানবন্দরে নামার সঙ্গে সঙ্গেই বাধা দেওয়া হবে তৃণমূলের প্রতিনিধিদের। আইন দেখিয়ে ফেরত পাঠানো হতে পারে। অর্থাৎ অসম সফরে যে প্রতি মুহূর্তে বাধার সম্মুখীন হতে হবে তৃণমূলের প্রতিনিধিদের, তা স্পষ্ট।

জানা যাচ্ছে, জাতীয় নাগরিকপঞ্জিতে যাঁদের নাম নেই তাঁদের সঙ্গে দেখা করে অসমের সার্বিক পরিস্থিতি খতিয়ে দেখবেন প্রতিনিধিরা। সেই সঙ্গে কথা বলবেন অসমের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গেও। এদিনই সর্বানন্দ সোনওয়ালের সঙ্গে ফিরহাদ হাকিমদের দেখা হওয়ার কথা। যাঁরা ইতিমধ্যেই নাগরিকত্ব হারিয়েছেন তাঁদের যাতে হেনস্তার মুখে পড়তে না হয় সে ব্যাপারেই মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানাবেন তাঁরা। গোড়া থেকেই এনআরসি-র বিরোধিতা করছে তৃণমূল। এই সফরের পরেই দলের পরবর্তী কর্মসূচি ঠিক করা হবে বলেও খবর।

[বাড়ির পিছনের গর্তে উদ্ধার একই পরিবারের ৪ জনের দেহ, কালাজাদুর আশঙ্কা পুলিশের]

এদিকে তৃণমূলের অসমে আসা নিয়ে গোটা রাজ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। বহিরাগত রাজনৈতিক দলের পা রাখায় খুশি নয় একাধিক সংগঠন। যেমন ‘অল অসম স্টুডেন্টস ইউনিউন’ এর বিরোধিতাই করছে। ইউনিয়নের শীর্ষ নেতা সমুজ্জ্বল ভট্টাচার্যের মত, অবৈধ বাংলাদেশি চিহ্নিতকরণের পথে বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। একাধিক সংগঠনই এ ব্যাপারে অসন্তুষ্ট। অসম জাতীয়তাবাদী যুব ছাত্র পরিষদের পক্ষ থেকে লক্ষ্মীমপুর থানায় ইতিমধ্যেই প্ররোচনামূলক মন্তব্যের জন্য এফআইআর দায়ের হয়েছে। সংগঠনের অভিযোগ, অসমের এনআরসি ইস্যুকে কেন্দ্র করে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন মমতা। তাই অসমকে উত্তপ্ত করার চেষ্টা করছেন।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement