১৪ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

রক্তাক্ত বন্ধুকে বাঁচাতে সাহায্যের আবেদন কিশোরের, দাঁড়িয়ে দেখল পুলিশ!

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 20, 2018 11:11 am|    Updated: January 20, 2018 11:11 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: টহলদারি পুলিশের নির্লিপ্ততায় প্রাণ গেল দুর্ঘটনায় আহত দুই কিশোরের। হাসপাতালে পৌঁছে দেওয়ার জন্য বারবার কর্তব্যরত পুলিশকর্মীদের অনুরোধ করেও কোনও ফল হয়নি। দুর্ঘটনাস্থল পর্যবেক্ষণ করলেও আহতদের দ্রুত চিকিৎসার জন্য কোনও তৎপরতা দেখায়নি পুলিশ। এমনটাই অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার রাতে মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের সাহারানপুরে। গোটা দৃশ্যের ভিডিওটি ভাইরাল হতেই পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। অভিযুক্ত পুলিশকর্মীদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন পুলিশ সুপার প্রলাভ প্রতাপ সিং।

[‘প্রোটোকল’ বুঝি না, ব্যঙ্গাত্মক ভিডিও প্রসঙ্গে কংগ্রেসকে পালটা মোদির]

জানা গিয়েছে, শুক্রবার রাতে রাস্তার পাশের বিদ্যুতের খুঁটিতে ধাক্কা মেরে লাগোয়া খালে উলটে যায় একটি বাইক। এই ঘটনায় মারাত্মক জখম হয় বাইক চালক ও সঙ্গী আরোহী কিশোর। বন্ধুকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছে সাহায্যের আবেদন জানায় আহত কিশোর। কিন্তু কোনও সাড়া মেলেনি। সেই সময় ঘটনাস্থল থেকে যাচ্ছিল রুটিন টহলে যাওয়া পুলিশকর্মীদের গাড়ি। আহত কিশোর পুলিশকর্মীদের কাছেও সাহায্যের জন্য অনুনয় বিনয় করে। অভিযোগ, গাড়িতে রক্ত লেগে যাওয়ার ভয়ে আহতদের হাসপাতালে পৌঁছে দেওয়ার কোনও উদ্যোগ নেয়নি পুলিশকর্মীরা। গোটা ঘটনাটিকে ক্যামেরাবন্দি হয়ে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে যেতেই তা ভাইরাল হয়ে যায়। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে রক্তাক্ত কিশোরের পাশে বসেই আহত কিশোর সাহায্য চাইছে। বারবার বন্ধুর গায়ে হাত দিচ্ছে আর কাঁদতে কাঁদতে বলছে এর “শরীর ঠান্ডা হয়ে যাচ্ছে। কিছু তো করুন।” দু-একটি গাড়ি ঘটনাস্থল থেকে যাওয়ার সময় সেখানে দাঁড়াচ্ছে। কিছুক্ষণ দেখার পর ফের গন্তব্যে রওনা হয়ে যাচ্ছে।

গোটা ঘটনা পুলিশেরও নজর এড়ায়নি। এই প্রসঙ্গে পুলিশ সুপার জানিয়েছেন, মর্মান্তিক ভিডিওটি তিনি দেখেছেন। যে কর্তব্যরত পুলিশকর্মীরা ঘটনাস্থলে ছিলেন তাদের চিহ্নিত করার চেষ্টা চলছে। তদন্ত শুরু হয়েছে। প্রত্যেকের বিরুদ্ধেই আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

[নিয়ন্ত্রণরেখায় রেঞ্জার্সের গুলিবর্ষণের যোগ্য জবাব বিএসএফ-এর, হত ৪ পাক নাগরিক]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement