৩০ চৈত্র  ১৪২৭  মঙ্গলবার ১৩ এপ্রিল ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

Bengal Polls 2021:

Published by: Sulaya Singha |    Posted: April 1, 2021 9:31 pm|    Updated: April 1, 2021 9:31 pm

An Images

বুদ্ধদেব সেনগুপ্ত: দ্বিতীয় দফার ভোটে কমিশনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলল সংযুক্ত মোর্চা। অনেক ক্ষেত্রেই কমিশন পক্ষপাতিত্ব করছে। আগে থেকে তথ্য দেওয়ার পরেও ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি বলে অভিযোগ বামেদের। নন্দীগ্রাম তার প্রমাণ বলে জানান সিপিএম নেতা রবীন দেব। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রাজ্যের পরিবেশ কলুষিত হচ্ছে। এর দায় কমিশনের উপর চাপিয়েছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী।

কমিশন (Election Commission) ১৪৪ ধারা জারি করার পরেও কীভাবে রাজ্য ও কেন্দ্রের শাসদকদল বারবার তা ভঙ্গ করল, কিন্তু কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হল না কার স্বার্থে? তা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন মোর্চার সবচেয়ে আলোচিত প্রার্থী মীনাক্ষী মুখোপাধ্যায়। ভোট চলাকালীন বেশ কয়েকবার তাঁর কাছে ফোন যায় আলিমুদ্দিনের ভোট ম্যানেজারদের। নন্দীগ্রামের (Nandigram) পরিস্থিতি নিয়ে তিনি সিপিএম নেতৃত্বকে তথ্য দেন। এছাড়াও যে চারটি জেলায় ভোট ছিল সেখানকার জেলা নেতৃত্বের কাছ থেকে তথ্য নেয় আলিমুদ্দিন। ভোটের গতিপ্রকৃতি অনুকূল নয় বুঝেই কমিশনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বামেরা।

একের পর এক শরিক নেতাদের ফোন করে কমিশনে আসতে অনুরোধ করা হয়। রবীন দেব জানান, সকাল থেকেই দু’পক্ষ হিংসার আশ্রয় নিয়ে ভোট লুঠের খেলায় মেতেছিল। আগেই বিষয়টি নিয়ে অভিযোগ জানানো হলেও দিনের শেষে বোঝা যাচ্ছে অশান্তি ঠেকাতে কমিশন আন্তরিক ছিল না। বহু জায়গাতে মানুষ গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করতে পারেনি। তথ্যপ্রমাণ দিয়ে অভিযোগ জানান হলেও কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ বাম নেতৃত্বের। কমিশনের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল তোলার পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ করেন প্রদেশ সভাপতি অধীর চৌধুরি।

[আরও পড়ুন: হাতে মাত্র ৫০০ টাকা, সীমিত ক্ষমতা নিয়েই ভোটের ময়দানে সাঁইথিয়ার SUCI প্রার্থী]

দ্বিতীয় দফার ভোটে (Bengal Polls 2021) নন্দীগ্রামে সন্ত্রাস ও খুনের ঘটনায় নির্বাচন কমিশনের ব্যর্থতাকেই দায়ী করলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরি। তিনি জানান, “পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনী পরিবেশ যে বিষাক্ত হতে পারে, সে কথা আগেই আমরা জানিয়েছিলাম। কিন্তু তারা সতর্ক হয়নি।” এনিয়ে নির্বাচন কমিশনে আবার অভিযোগ করা হবে বলেন জানান তিনি।

কংগ্রেস নেতা কেন্দ্রের বিজেপি ও রাজ্যের তৃণমূল সরকারের তীব্র সমালোচনা করে বলেন, “ভোটে তৃণমূল যে হেরে যাচ্ছে, তার ইঙ্গিত স্পষ্ট। আর তাই তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় বুধবার রাতে সোনিয়া গান্ধীর দ্বারস্থ হন। বিজেপির বিরুদ্ধে তিনি ব্যর্থ। তাই সোনিয়াজির দয়া চাইছেন। এই যদি দিদির অবস্থা হয়, তো মানুষ কোন দুঃখে তৃণমূলকে ভোট দেবেন?”

[আরও পড়ুন: Exclusive: নন্দীগ্রামে জয় নিয়ে আত্মবিশ্বাসী, অন্য কোনও আসনে লড়ছেন না মমতা]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement