BREAKING NEWS

২৭ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ১২ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

Face App-এ মজেছে নেটদুনিয়া, আপনি ট্রাই করেছেন?

Published by: Sulaya Singha |    Posted: July 16, 2019 6:49 pm|    Updated: July 16, 2019 6:49 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: টাইম মেশিনে চেপে যদি বেশ কয়েকটা বছর এগিয়ে গিয়ে নিজের চেহারাটা দেখে নেওয়া যেত, তাহলে কেমন হত? যৌবনেই যদি দেখতে পেতেন বার্ধক্যের লুক, তবে মন্দ হত না। প্রযুক্তির কল্যাণে এখন এক ক্লিকেই তা সম্ভব। স্মার্টফোনে একটি অ্যাপ ডাউনলোড করে নিলেই হল।

মজার এই অ্যাপটি হল Face App। যার মাধ্যমে একনিমেষে বয়স্ক মানুষে পরিণত হবেন আপনি। শুধু তাই নয়, বয়স্করা হয়ে যেতে পারেন তরুণও। সোশ্যাল মিডিয়ায় এখন এই অ্যাপই রয়েছে ট্রেন্ডিংয়ে। অনেকেই নিজেদের ‘বার্ধক্যে’র ছবি এই অ্যাপে এডিট করে পোস্ট করছেন। আবার অনেকে প্রিয় তারকাদেরও এই লুকে দেখতে আগ্রহী। তাই বিরাট কোহলি, স্টিভ স্মিথ থেকে মহম্মদ সালাহ, প্রত্যেকের ছবিই এডিট করে দেখা হচ্ছে, বৃদ্ধ অবস্থায় কাকে কেমন দেখায়। গুগল প্লে স্টোরে এই অ্যাপটি যে নতুন এসেছে, এমনটা নয়। তবে বিশ্বকাপের মরশুমে এটি বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

salah

[আরও পড়ুন: শুধু গন্তব্যের হদিশই নয়, এবার Google Map-এর সৌজন্যে মিলবে রেস্তরাঁয় ছাড়]

সম্প্রতি স্ন্যাপচ্যাটে বেবি-ফেস এবং জেন্ডার-সোয়্যাপ ফিল্টার নিয়ে বেশ উৎসাহী ছিলেন ইউজাররা। বেবি-ফেস ফিল্টারে এক মুহূর্তে আপনাকে দেখতে হয়ে যায় শিশুর মতো। আর জেন্ডার-সোয়্যাপে মহিলা হয়ে যান পুরুষ এবং পুরুষ বদলে হয়ে যান মহিলা। সম্প্রতি বেবি-ফেস অ্যাপটির মাধ্যমে মজা করে স্ত্রী দীপিকা পাড়ুকোনকে শিশুতে পরিণত করেছিলেন বলিউড সুপারস্টার রণবীর সিং। আবার বিশ্বকাপ চলাকালীন ধারাভাষ্যের মাঝে সঞ্চালকরা বিরাট কোহলি-ধোনিদের করে দিয়েছিলেন মহিলা। এবার নেটিজেনরা মজেছেন Face App-এ।

কীভাবে ব্যবহার করবেন অ্যাপটি? প্রথমে প্লে স্টোর থেকে অ্যাপটি ডাউনলোড করে নিন। এবার এটি খুলে অ্যাড ইজেম অপশন ক্লিক করে নিজের একটি ছবি নিয়ে আসুন গ্যালারি থেকে। ক্যামেরা অপশনের মাধ্যমে ছবি তুলেও এডিট করতে পারেন। ছবি এলেই স্মাইল, ওল্ড, টু ইয়ং-এর মতো অপশনগুলি খুলে যাবে। আপনি যদি নিজের বার্ধক্যকে চোখের সামনে দেখতে চান, তবে ওল্ড অপশনটি বেছে নিন। তারপর ছবিটি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে দেখুন তো বন্ধুমহল কী বলছেন।

face-app

[আরও পড়ুন: স্মার্টফোনে মাত্রাতিরিক্ত আসক্তি, বিপদ ডেকে এনেছিল চার বছরের শিশু!]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement