৫ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  শুক্রবার ২২ নভেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়: আজ থেকেই শব্দবাজি নিয়ে নজরদারি শুরু করলো রাজ্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ। চলবে আগামী তিনদিন ধরে। তৈরি হয়েছে কন্ট্রোল রুম। থাকছে পেট্রলিংয়েরও ব্যবস্থাও। ‘আপনার উচ্ছ্বাস যেন পরিবেশের ভারসাম্যে বিঘ্ন না ঘটায়’ – এই স্লোগানকে সামনে রেখে নিরন্তর শব্দবাজি ও আতসবাজির দূষণ রুখতে প্রচার চালিয়েছে রাজ্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ। দীপাবলি ও কালীপুজোর আগে লিফলেটের মাধ্যমে প্রচারও চালিয়েছে পর্ষদ।
সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী, দীপাবলি উপলক্ষে কেবলমাত্র রাত আটটা থেকে দশটা পর্যন্তই অনুমোদিত বাজি ব্যবহার করা যাবে। নির্দিষ্ট সময়ের বাইরে অনুমোদিত শব্দেই মাইক্রোফোন কিংবা সাউন্ড বক্স ব্যবহার করা যাবে। ‘নিঃশব্দ অঞ্চল’ বা ‘সাইলেন্ট জোন’ থেকে একশো মিটারের মধ্যে মাইক্রোফোন বা শব্দবাজির ব্যবহারে সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে রাজ্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ। ৯০ ডেসিবেলের উপর শব্দবাজি ফাটানোর অভিযোগ এলেই আইনানুগ ব্যবস্থা নেবে পর্ষদ বলেও জানানো হয়েছে। অভিযোগ জানানোর জন্য ‘পরিবেশ অ্যাপ’ কিংবা সরাসরি কন্ট্রোল রুমে ফোন করতে বলা হয়েছে পর্ষদের পক্ষ থেকে।

[আরও পড়ুন: দূষণ-রোধে অভিনব ভাবনা, এক কেজি প্লাস্টিকের বদলে মিলছে এক কিলো চাল]

দুর্গাপুরে পর্ষদের আঞ্চলিক কার্যালয়ে শনিবার বিকেল পাঁচটা থেকেই খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম। কন্ট্রোল রুমের নম্বর– ০৩৪৩ ২৫৪৬৭০৮। খোলা থাকবে রাত বারোটা পর্যন্ত। এছাড়াও কালীপুজোর দিন ও তার পরের দিনও একই সময়ে খোলা থাকছে কন্ট্রোল রুম। রাজ্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের দুর্গাপুর আঞ্চলিক কার্যালয়ের অধীনে রয়েছে বাঁকুড়া, বীরভূম ও পূর্ব বর্ধমান জেলা রয়েছে। পশ্চিম বর্ধমান জেলার দুর্গাপুরও এই আঞ্চলিক কার্যালয়েরই অধীনে। পর্ষদের বিধিনিষেধ খতিয়ে দেখতে তিনজনের একটি করে দল সমস্ত এলাকায় নজরদারি চালাবে বলে পর্ষদের দুর্গাপুর আঞ্চলিক কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে। অভিযোগ পেলেই দ্রুত পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শনিবার থেকে তিনদিনই এই নজরদারি টিম এলাকায় এলাকায় প্রয়োজনীয় দূষণ মাপার যন্ত্র নিয়ে ঘুরবে। রাজ্য দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের দুর্গাপুর আঞ্চলিক কার্যালয়ের মুখ্য ইঞ্জিনিয়ার অরূপ দে জানান, “আগের থেকে শব্দবাজির ব্যবহারে মানুষের মধ্যে অনেকটাই সচেতনতা এসেছে। তাও পুজোর সময় আমাদের কন্ট্রোল রুম খোলা থাকবে। নজরদারিও চালানো হবে। বিধি ভাঙলেই কড়া আইননানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।” সবমিলিয়ে দূষণমুক্ত দীপাবলি পালনে সাধারণ নাগরিককে সচেতন করার পাশাপাশি দূষণ রোধেও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার জন্যে তৈরি রাজ্য পরিবেশ দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ।

[আরও পড়ুন: বিডিও পরিচয়ে ফুর্তি করতে গিয়ে জারিজুরি ফাঁস, গ্রেপ্তার বারাসতের শিক্ষক]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং