×

৫ ফাল্গুন  ১৪২৫  সোমবার ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার
নিউজলেটার

৫ ফাল্গুন  ১৪২৫  সোমবার ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রথম ম্যাচের মতোই দ্বিতীয় ম্যাচেও খেললেন না মিতালি রাজ। যথারীতি প্রথম ম্যাচের মতোই দ্বিতীয় ম্যাচেও নিউজিল্যান্ডের কাছে হার স্বীকার করলেন ভারতের মেয়েরা। ফলে, টি-২০ সিরিজ চলে গেল নিউজিল্যান্ডের হাতেই। আর একটাই ম্যাচ বাকি। তবে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ কিউয়ি জিতে যাওয়ায় শেষ ম্যাচটি হয়ে গেল স্রেফ নিয়মরক্ষার।

একদিকে অকল্যান্ডে যখন কিউয়িদের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচ হেরেও শুক্রবার ঘুরে দাঁড়ালেন রোহিত শর্মারা। সেখানে চূড়ান্ত হতাশ করল প্রমিলাবাহিনী। প্রথম ম্যাচে মিতালি না খেলায় অধিনায়ক হরমনপ্রিত কৌর বলেছিলেন, জুনিয়রদের সুযোগ দেওয়ার জন্যই সিনিয়রদের খেলানো হচ্ছে না। ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্যই এমন ভাবনাচিন্তা। তবে অনেকে ভেবেছিলেন, প্রথম ম্যাচে ভারত হেরে বসায় নিশ্চয়ই দ্বিতীয় ম্যাচে দলের অভিজ্ঞ তারকা মিতালিকে খেলালো হবে। বিশেষ করে সিরিজ জেতার তাগিদ দেখাবে ভারত। কিন্তু বাস্তবে দেখা গেল, সেই জুনিয়রদেরই ফের সুযোগ দিয়ে সিরিজ খুইয়ে বসল ভারতীয় মহিলা ক্রিকেট দল। নিউজিল্যান্ড জিতে গেল ৪ উইকেটে।

[ব্যাটে-বলে দুরন্ত ভারত, কিউয়িদের হারিয়ে সিরিজে সমতায় ফিরলেন রোহিতরা]

প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ভারতের মেয়েরা নির্ধারিত ওভারে ৬ উইকেট খুইয়ে করে ১৩৫ রান। ব্যাট হাতে একমাত্র জেমাইমা রডরিগেজ ৫৩ বলে ৭২ রান করেন। তাঁর দুরন্ত ইনিংস সাজানো ছিল ছ’টা ৪ ও একটা ৬ দিয়ে। বাকিদের মধ্যে স্মৃতি মন্দনা করেন ৩৬ রান। এছাড়া আর কেউই ক্রিজে টিকতে পারেননি। সেই সুবিধাটা নিয়ে চলে যায় নিউজিল্যান্ড। ওপেনার সুজি বাটেস একাই বলতে গেলে দলকে জিতিয়ে দিয়েছেন। তিনি ৫২ বলে করেন ৬২ রান। পাশাপাশি দলে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান করেছেন অধিনায়ক অ্যামি। তাঁর ২৩ রান আসে ২০ বলে। তবে, খেলার শেষের দিকে যথেষ্ট উত্তেজনার পরিবেশ সৃষ্টি হয় অকল্যান্ডের ইডেন পার্কে। ১৯.২ ওভারের মাথায় ক্যাটি মার্টিন আউট হওয়ার পরে চাপে পড়ে গিয়েছিল নিউজিল্যান্ড। কিন্তু শেষ হাসি হাসেন কিউয়ি তারকারাই।

[ঝোড়ো ইনিংস খেলে টি-টোয়েন্টিতে বিশ্বরেকর্ডের মালিক রোহিত]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং