১৫  আষাঢ়  ১৪২৯  শুক্রবার ১ জুলাই ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

পেটের টানে বক্সিং ছেড়ে পার্কিং লটে টিকিট বিক্রি জাতীয় স্তরের মহিলা বক্সারের

Published by: Abhisek Rakshit |    Posted: August 7, 2021 9:29 pm|    Updated: August 7, 2021 9:29 pm

Once National-Level Boxer, Ritu Now Sells Parking Tickets In Chandigarh To Make Ends Meet | Sangbad Pratidin

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: টোকিও অলিম্পিকে (Tokyo Olympics) দুরন্ত পারফরম্যান্স করেছেন ভারতীয় অ্যাথলিটরা। বলতে গেলে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ পারফরম্যান্স। কারণ এখনও পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি পদক এসেছে টোকিও থেকেই। কিন্তু জানেন কী অলিম্পিকে এই সাফল্যের দিনেই সামনে এসেছে চোখে জল এনে দেওয়ার মতো একটি ঘটনা। একসময় জাতীয় স্তরে বক্সিং করতেন এমন খেলোয়াড় নাকি পার্কিং লটে টিকিট বিক্রি করেন। হ্যাঁ, শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি। সম্প্রতি সামনে ঋতু নামে চণ্ডীগড়ের ওই বক্সারের কথা।

সংবাদসংস্থা এএনআই সূত্রে খবর, জাতীয় স্তরে বক্সিংয়ের অনেক ম্যাচেই রিংয়ে নেমেছেন ঋতু। এমনকী পদকও জিতেছেন। কিন্তু তেমনভাবে সরকারি সহায়তা কখনও পাননি তিনি। এমনকী কোনও ইনস্টিটিউশন থেকেই সাপোর্ট কিংবা কোনও স্কলারশিপ পাননি। ফলে মাঝপথেই প্রফেশনাল বক্সার হওয়ার স্বপ্ন ভেঙে যায় তাঁর। আর তাই বক্সিং ছেড়ে পেটের টানে কাজে যোগ দেন তিনি।

[আরও পড়ুন: Neeraj-এর হাত ধরে অ্যাথলেটিক্সে প্রথম সোনা, নিজের স্বপ্ন সত্যি হওয়া দেখা হল না মিলখার]

এএনআইয়ের পক্ষ থেকে এদিন বেশ কয়েকটি ছবি পোস্ট করা হয়েছে রীতুর। সেখানে তাঁকে পার্কিং লটে কাজ করতে দেখা যাচ্ছে। পার্কিং লটে আসা গাড়িগুলিকে টিকিট দিচ্ছেন তিনি। কিন্তু কেন এই পেশা বেছে নিলেন? জানা গিয়েছে, ঋতুর বাবার শরীর খুবই খারাপ। আর তাই সংসারের হাল ধরতেই বক্সিং ছেড়ে তাঁর কাজে যোগদান। ANI-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছেন, “জাতীয় স্তরে আমি অনেক ম্যাচ খেলেছি। পদকও পেয়েছি। আমার পরিবার আমাকে সমর্থন করলেও অন্য কোনও জায়গা থেকে সমর্থন বা স্কলারশিপ পাইনি। আমার বাবার শরীর খারাপ। তাই খেলা ছাড়তে হয়েছে। আশা করি সরকারের থেকে সাহায্য পাব।”

 

[আরও পড়ুন: Tokyo Olympics: ফুটবলে সোনা জয় ব্রাজিলের, আর্জেন্টিনাকে ছুঁয়ে ফেলল সেলেকাওরা]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে