২৯ ভাদ্র  ১৪২৬  সোমবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ভোটের ফলাফল প্রকাশ হওয়ার পর থেকে রাজনৈতিক সংঘর্ষে উত্তপ্ত রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত৷ কখনও আক্রান্ত হচ্ছে তৃণমূল তো কখনও বিজেপি৷ দুপক্ষের মধ্যে হামলার ঘটনায় চলছে অভিযোগ-পালটা অভিযোগের পালা৷ এবার সেই তালিকায় নাম জুড়ল হুগলির ধনেখালির৷ তৃণমূল কর্মীর পেটে লোহার রড ঢুকিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠল বিজেপির বিরুদ্ধে৷

[ আরও পড়ুন: বিজয় মিছিলের প্রস্তুতি চলাকালীন ধারালো অস্ত্রের কোপ, কেতুগ্রামে খুন বিজেপি কর্মী]

হুগলিতে ভরাডুবি হয়েছে তৃণমূলের৷ রত্না দে নাগকে হারিয়ে জয়ী হয়েছেন লকেট চট্টোপাধ্যায়৷ ঘাসফুল শিবিরের অভিযোগ, তারপর থেকে ক্রমশই কোণঠাসা করার চেষ্টা করা হচ্ছে তৃণমূল কর্মীদের৷ বিভিন্ন প্রান্তে দখল করে নেওয়া হচ্ছে দলীয় কার্যালয়৷ শুধু তাই নয়, আক্রান্ত হতে হচ্ছে ঘাসফুল শিবিরের নেতাকর্মীদেরও৷ বুধবার রাতে ধনেখালির তালবোনা গ্রামে মাঠে বসে গল্প করছিলেন সুরেশ মুদি নামে এক তৃণমূল কর্মী৷ অভিযোগ, সেই সময় বিজেপি আশ্রিত বেশ কয়েকজন দুষ্কৃতী ওই মাঠে আসে৷ সুরেশকে বেধড়ক মারধর করে তারা৷ বাঁশ এবং লাঠিসোঁটা দিয়ে মারধর করা হয় তাঁকে৷ মারধরের পর তৃণমূল কর্মীর পেটে লোহার রড ঢুকিয়ে দেওয়া হয় বলেও অভিযোগ৷ যন্ত্রণায় আর্তনাদ করতে থাকেন আক্রান্ত তৃণমূল কর্মী৷ তড়িঘড়ি ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন প্রতিবেশীরা৷ তাঁকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷ প্রাথমিক চিকিৎসাও হয় সুরেশের৷ কিন্তু অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় এসএসকেএম হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয় ওই তৃণমূল কর্মীকে৷ তাঁর অবস্থা অত্যন্ত আশঙ্কাজনক৷

[ আরও পড়ুন: পার্টি অফিসে ঢুকে তৃণমূল কর্মীদের চোখে লঙ্কা গুঁড়ো, তাণ্ডব বিজেপি কর্মীদের]

এই ঘটনায় চলছে অভিযোগ-পালটা অভিযোগের পালা৷ তৃণমূল গোটা ঘটনার জন্য গেরুয়া শিবিরকে দায়ী করেছে৷ তবে বিজেপির তরফে সেই অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে৷ পরোক্ষে সুরেশ মুদির আক্রান্ত হওয়ার ঘটনায় তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বকেই দায়ী করেছেন পদ্ম শিবিরের নেতাকর্মীরা৷ রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের মধ্যে অভিযোগ-পালটা অভিযোগের দড়ি টানাটানি চললেও এখনও পুলিশে অভিযোগ দায়ের হয়নি৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং