BREAKING NEWS

১৪ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

মন্দির থেকে সোজা বিলেতে পাচার, দু’দশক পর ভারতে ফিরছে মহামূল্যবান শিবের মূর্তি

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: July 31, 2020 2:49 pm|    Updated: July 31, 2020 2:51 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ২০০ বছর ভারত শাসনের পর বিদায়বেলায় ব্রিটিশরা নাকি এখানকার বহু মূল্যবান সামগ্রী সঙ্গে নিয়ে গিয়েছিল। সে বহূমূল্য রত্নই হোক বা দেবদেবীর মূর্তি। কিছুদিন ইংল্যান্ডের মিউজিয়ামে শোভা পেয়েছে সেসব। পরবর্তী সময়ে ভারত সরকারের তৎপরতায় যেখানকার সামগ্রী সেখানে ফিরিয়ে দিতে বাধ্য হয়েছেন ব্রিটিশরা। এবারও ফিরতে চলেছে তেমনই এক মহামূল্যবান দেবমূর্তি। রাজস্থানের গতেশ্বরী মন্দির থেকে নয়ের দশকে চুরি যাওয়া শিবমূর্তি (Lord Shiva) যথাস্থানে ফেরাতে উদ্যোগী ভারত। ত্রিনেত্র, জটামুক্ত একটু ভিন্নরূপী নটরাজের মূর্তিটি ফের শোভা পাবে গতেশ্বরী মন্দিরে।

ভারতীয় পুরাতত্ব বিভাগ (ASI) সূত্রে জানা গিয়েছে, কনৌজ সাম্রাজ্যের শিল্প ঘরানা গুর্জর- প্রাথিহারা রীতি মেনে নয়ের দশকে ৪ ফুটের ওই শিবমূর্তিটি তৈরি করা হয়েছিল। তা স্থাপন করা হয় রাজস্থানের বরোলির গতেশ্বরী মন্দিরে। এরপর ১৯৯৮ সালে তা চুরি যায় মন্দির থেকে। মহামূল্যবান মূর্তিটি সাতসমুদ্র পেরিয়ে সোজা বিলেতে পাচার হয়ে যায়। সেখান থেকে মূর্তিটি কিনে নিজের সংগ্রহে রাখেন ধনী এক ব্রিটিশ। এদিকে, ভারতের তরফেও ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হয়। তা খুঁজে পেয়ে ২০০৫ সালে ভারতীয় হাইকমিশনের হাতে শিবের মূর্তি তুলে দেওয়া হয়।

[আরও পড়ুন: করোনার দাপটে কাঁপছে আমেরিকা, পর্যাপ্ত খাবার নেই ৩ কোটি মার্কিন জনতার]

তবে তারপরও বিস্তর জটিলতা ছিল। ২০১৭ সালে ভারতের পুরাতত্ববিদদের এক প্রতিনিধিদল লন্ডনে গিয়ে মূর্তিটি চিহ্নিত করেন। তাঁরা জানান যে এটাই বরোলির মন্দির থেকে চুরি যাওয়া সেই শিবমূর্তি। প্রায় দু দশকের বেশি সময় পর স্বস্থানে ফিরছে প্রাথিহারা স্থাপত্যের অন্যতম নিদর্শন নটরাজ মূর্তিটি। এর আগে দ্বাদশ শতাব্দীতে তৈরি ব্রোঞ্জের বৌদ্ধমূর্তি ভারতে ফিরিয়েছে লন্ডন পুলিশ। এবার আসছেন নটরাজ। ASI সূত্রে জানা গিয়েছে, ভারতীয় স্থাপত্যকীর্তির এমন অনেক নিদর্শনই ইউরোপের দেশগুলোতে রয়ে গিয়েছে। সবই ফিরিয়ে আনার তোড়জোড় চলছে।

[আরও পড়ুন: টাইমস স্কোয়্যারের বিলবোর্ডে ভেসে উঠবেন ‘শ্রী রাম’, ৫ আগস্ট ইতিহাসের সাক্ষী হবে গোটা বিশ্ব]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement