২২ আষাঢ়  ১৪২৭  মঙ্গলবার ৭ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

আফগানিস্তানে রয়েছে হাজার হাজার পাক জঙ্গি, ইসলামাবাদের মুখোশ খুলল রাষ্ট্রসংঘ

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: June 3, 2020 4:25 pm|    Updated: June 3, 2020 4:25 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ভারতের অভিযোগে সিলমোহর দিয়ে পাকিস্তানের মুখোশ খুলে দিল রাষ্ট্রসংঘ। আন্তর্জাতিক সংস্থাটি সাফ জানিয়েছে, আফগানিস্তানে বিদেশি জঙ্গিদের মধ্যে অধিকাংশই পাক নাগরিক।

[আরও পড়ুন: নেপথ্যে ISI, করোনায় কাবু তালিবানের রাশ ধরল মোল্লা ওমরের ছেলে]

সদ্য আফগানিস্তানে সন্ত্রাসবাদ নিয়ে একটি রিপোর্ট পেশ করেছে রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের (UNSC) ‘analytical support and sanctions monitoring team’। সেখানে সাফ বলা হয়েছে, এই মুহূর্তে আফগানিস্তানে সক্রিয় ৬ হাজার ৫০০ পাক জঙ্গি। ওই দেশে থাকা বিদেশি সন্ত্রাসবাদীদের মধ্যে অধিকাংশই পাক নাগরিক। ভারতের অভিযোগে সিলমোহর দিয়ে ওই রিপোর্টে আর বলা হয়েছে, আফগানিস্তানে বিদেশি জঙ্গিদের পাঠাচ্ছে পাক মদতপুষ্ট জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদ ও লস্কর-ই-তইবা। উল্লেখ্য, গত বছর কাবুলে ভারতীয় দূতাবাসে হামলার নেপথ্যে রয়েছে লস্কর। আন্তর্জাতিক মঞ্চে নয়াদিল্লি বারবার অভিযোগ জানিয়েছে যে, বিশ্বে সন্ত্রাস রপ্তানি করছে পাকিস্তান (Pakistan)।

গোয়েন্দা সূত্রে খবর, আন্তর্জাতিক চাপ ও কড়া নজরদারির মুখে পড়ে নিজের দেশ থেকে হাজার হাজার জইশ ও লস্কর জঙ্গিকে আফগানিস্তানে পাঠাচ্ছে ইসলামাবাদ। এই সমস্ত অপারেশনে মদত দিচ্ছে পাক সেনা ও গুপ্তচর সংস্থা আইএসআই। আফগানিস্তানের নিরাপত্তাকে কড়া চ্যালেঞ্জ জানাচ্ছে তেহরিক-ই-তালিবান, জইশ ও লস্করের মতো জেহাদি সংগঠনগুলি। মার্কিন সেনা প্রত্যাহার নিশ্চিত হওয়ার পর থেকে আরও বেড়েছে ওই সংগঠনগুলির দাপট। এছাড়াও, রাষ্ট্রসংঘের রিপোর্টে সাফ বলা হয়েছে, আমেরিকার সঙ্গে শান্তিচুক্তি স্বাক্ষর করলেও জঙ্গি সংগঠন আল কায়দার সঙ্গে যোগাযোগ রয়েছে তালিবানের। ফলে কাবুলের সঙ্গে তালিবানের শান্তিপ্রক্রিয়া বিঘ্নিত হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি আফগানিস্তানের  গোয়েন্দা সংস্থা ‘ন্যাশনাল ডিরেক্টরেট অফ সিকিউরিটি’র প্রাক্তন প্রধান রহমতোল্লা নবিল টুইট করে দাবি করেছেন, পাক গুপ্তচর সংস্থা ISI-এর দৌলতে তালিবানের রাশ হাতে পেয়েছে মোল্লা ওমরের ছেলে মোল্লা ইয়াকুব। ‘সুরা’য় প্রবীণ আফগান তালিবান নেতাদের প্রভাব কমাতে চাইছে পাকিস্তান। এর জন্য পোষ্যপুত্র ইয়াকুবকে দলের প্রধান হিসেবে বসিয়েছে তারা।

[আরও পড়ুন: ‘ভারত-চিন সীমান্ত বিবাদ নিয়ন্ত্রণে’, দাবি চিনা বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্রের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement