BREAKING NEWS

১৭ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  শনিবার ৪ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

OMG! প্রেমিককে কুচি কুচি করে কেটে রাঁধল মহিলা, মাংস কারা খেল জানেন?

Published by: Subhamay Mandal |    Posted: November 22, 2018 10:02 am|    Updated: November 22, 2018 10:02 am

Woman kills lover, cooks flesh

ছবি: প্রতীকী

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রেমে প্রত্যাখ্যাত হলে কোনও মহিলা কী করতে পারে? প্রেমিককে উচিত শিক্ষা দিতে পারে। তাঁকে চড় মারা, মারধর করা বা তাঁর জীবন দূর্বিষহ করে তুলতে পারে। মুখে অ্যাসিড ছুঁড়ে মারা বা পুরুষাঙ্গ কেটে নেওয়ারও ভূরি ভূরি উদাহরণ দেখা দিয়েছে। তবে এসবও এখন জলভাত হয়ে গিয়েছে। প্রেমিককে শাস্তি দিতে কোনও মহিলা এতটাই মরিয়া হতে পারে যে তাঁকে খুন করে দেহ কুচি কুটি করে কেটে রান্না করতে পারে! ভালবাসার এমন পৈশাচিক মৃত্যু হয়তো ঈশ্বরও ভাবতে পারবেন না। এমনটাই হয়েছে মধ্য প্রাচ্যের সংযুক্ত আরব আমিরশাহিতে। প্রেমে দাগা খেয়ে প্রেমিককে কুচি কুচি করে কেটে ঝাল ঝাল করে রেঁধে আবার পরিবেশনও করল এক মহিলা। ঘটনায় তো চক্ষু চড়কগাছ পুলিশের। ঘটনার নৃশংসতায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

[চলন্ত বাসে মহিলার সামনে হস্তমৈথুন, মুখ ফিরিয়ে রইলেন সহযাত্রীরা]

একটি আরবিক দৈনিকের খবর অনুযায়ী, আমিরশাহির আল-আইন প্রদেশের বাসিন্দা বছর তিরিশের ওই মহিলা পুলিশ আদালতের কাছে নিজের দোষ কবুল করেছে। জেরায় সে জানায়, কয়েক মাস আগে নিজের চেয়ে বয়সে ছোট এক যুবককে সে প্রেমে প্রত্যাখ্যাত হয়ে খুন করে। প্রতিশোধ নিতেই সে তাঁকে খুন করে দেহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুচি কুচি করে কাটে। তারপর সেই সেই মাংস দিয়ে মরক্কোর একটি পদ বানিয়ে স্থানীয় একটি নির্মীয়মাণ বহুতলের শ্রমিকদের খাওয়ায়। সেই নির্মাণ শ্রমিকরাও মহানন্দে তৃপ্তি করে সেই মাংস খায়। ঘুণাক্ষরেও তাঁরা বুঝতে পারেননি, তাঁরা কী খাচ্ছেন। এদিকে, ঘটনার কথা জানাজানি হয় কয়েক মাস পর যখন মৃত যুবকের ভাই ওই মহিলার বাড়িতে আসে। ভাইয়ের খোঁজ করতে যখন ওই যুবক মহিলার কাছে আসেন, তখন এই মহিলা জানান অনেকদিন আগেই তাদের সম্পর্ক ভেঙে গিয়েছে। প্রেমিকের অন্য মহিলার সঙ্গে সম্পর্ক আছে জানতে পেরেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ওই মহিলা।

[OMG! সমুদ্রের আর্বজনা জমছে তিমি মাছের পেটে!]

এতদূর পর্যন্ত ওই মহিলার পরিকল্পনা অনুযায়ীই চলছিল। কিন্তু সব ছকে জল ঢেলে দিল তার রান্নাঘরের মিক্সার-গ্রাইন্ডার। গ্রাইন্ডারের মধ্যে একটি দাঁত লক্ষ্য করেন নিহত যুবকের ভাই। সেই থেকেই তাঁর মনে সন্দেহ দানা বাঁধে। পুলিশে খবর দিতেই সত্য সামনে আসে। নিজের অপরাধ স্বীকার করে নেয় ওই মহিলা। তবে রহস্যের উদ্ঘাটন সম্পর্কে ওই নির্মাণ শ্রমিকরা ওয়াকিবহাল কিনা তা আর জানা যায়নি। ঘটনার কথা জানতে পেরে তাঁদের কী অবস্থা হয়েছিল তা ওই দৈনিক সংবাদপত্র উল্লেখ করেনি।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে