২৪ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  বুধবার ১১ ডিসেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুকুমার সরকার, ঢাকা: বাংলাদেশ ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় বা বুয়েটের ছাত্র আবরার হত্যার ঘটনায় পেশ করা হল অভিযোগপত্র। মাত্র এক মাসের মধ্যে তদন্ত শেষ করে দ্রুততার সঙ্গে চার্জশিট পেশের জন্য পুলিশ বিভাগের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানালেন বিএনপির সাংসদ হারুনুর রশিদ। সংসদে পয়েন্ট অব অর্ডারে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ দেন সাংসদ হারুন।

আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় ২৫ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ। বুধবার দুপুরে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতের সংশ্লিষ্ট শাখায় এই চার্জশিট জমা দেওয়া হয়। সাংসদ হারুন বলেন, “বুয়েটের ছাত্র আবরার হত্যার ঘটনায় চার্জশিট হয়েছে। এর আগে কোনও মামলায় এত দ্রুত অভিযোগপত্র হয়নি।” এ জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান। সাংসদ হারুনুর রশিদ বলেন, “নুসরত হত্যাকাণ্ডেও দ্রুততম সময়ে অভিযোগপত্র হয়েছে। সদিচ্ছা থাকলে সবই যে সম্ভব, তা আরও একবার প্রমাণিত হল।”

[আরও পড়ুন: কলকাতায় অপহৃত বাংলাদেশের ব্যবসায়ী, ওপার থেকে এল মুক্তিপণের ৬ লক্ষ টাকা]

গত ৬ অক্টোবর বুয়েটে শের-ই-বাংলা হল থেকে ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদের দেহ উদ্ধার করা হয়। পরে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের তদন্তে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলিগের নেতা-কর্মীরা তাঁকে পিটিয়ে হত্যা করেছে। এই মামলায় অভিযুক্ত ২৫ জনের মধ্যে তিনজন এখনও পলাতক। বাকিদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পুলিশের সন্ত্রাস দমন বিভাগের অতিরিক্ত কমিশনার মণিরুল ইসলাম জানিয়েছেন যে এই হত্যাকাণ্ডে ১১জন সরাসরি জড়িত ছিল, বাকি পরোক্ষভাবে জড়িয়ে ছিল। এই ঘটনার দায় স্বীকার করে ৮ জন আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে। বাকি ১৩ জনের জবানবন্দি ১৬১ ধারা অনুযায়ী রেকর্ড করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তদন্তকারীরা।
চার্জশিটে নাম রয়েছে, মেহেদি হাসান রাসেল, মুহতাসিম ফুয়াদ, অনীক সরকার, মেহেদি হাসান রবিন, ইফতি মুশারফ সকাল, মনিরুজ্জামান মনির, মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন, অমিত সাহা, মাজিদুল ইসলাম, মুজাহিদুল, মহম্মদ তনভির আহমেদ, হোসেন মহম্মদ ত্বহা, মহম্মদ জিসান, মহম্মদ আকাশ, শামিম বিল্লাহ, মহম্মদ সাদাত, মহম্মদ তানিম, মহম্মদ মোরশেদ, মোয়াজ আবু হুরায়রা, মুনতাসির আল জেমি, মিজানুর রহমান, শামসুল আরেফিন রাফাত, ইশতিয়াক আহমেদ মুন্না, এসএম মাহমুদ সেতুর। এখনও পলাতক তিন আসামি – মহম্মদ জিসান, মোরশেদ ও এহতেশামুল তানিম।

[আরও পড়ুন: বাংলাদেশে দুই ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষ, মৃত অন্তত ১৫]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং