১ কার্তিক  ১৪২৬  শনিবার ১৯ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

১ কার্তিক  ১৪২৬  শনিবার ১৯ অক্টোবর ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সুকুমার সরকার, ঢাকা: শিশু নির্যাতনের ঘটনায় কুখ্যাতি বেড়েই চলেছে বাংলাদেশের। বারবার আন্তর্জাতিক স্তরে শিশু সুরক্ষা নিয়ে মুখ পুড়ছে হাসিনা প্রশাসনের। সরকারের তরফে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার পরও থামতে চাইছে না শিশু ধর্ষণ। শিশুদের উপর অত্যাচারের ঘটনা যেন সামাজিক ব্যধিতে পরিণত হয়েছে। সেই কলঙ্কিত তালিকায় ঠাঁই হল আরেক ঘটনা।

[আরও পড়ুন: বিমান ছিনতাই মামলায় ম্যারাথন জেরা অভিনেত্রী শিমলাকে]

বগুড়ার ধুনট থানা এলাকায় জলপাইয়ের লোভ দেখিয়ে দু দিনে চার শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠল ভ্যান চালকের বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত চালক বছর পঞ্চান্নের জয়নাল আবেদিন। গত বুধবার সন্ধ্যায় বগুড়ার সিনিয়র বিচারক হাকিম শহিদুল ইসলামের আদালতে সে এই স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি দিয়েছে বলে সূত্রের খবর। জয়নাল নিজে দুই ছেলে ও এক মেয়ের জনক। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ঘটনার সময় জয়নাল আবেদিনের স্ত্রী তার মেয়ের বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিলেন। তাদের দুই ছেলে ঢাকায় থাকে। এই অবস্থায় জয়নাল বাড়িতে একাই ছিল। আর সেই সুযোগেই এমন কুকর্ম বলে আদালতের সওয়াল-জবাবের মুখে স্বীকার করেছে।
জানা গিয়েছে, ধর্ষণের শিকার চার শিশু তার প্রতিবেশী। তাদের মধ্যে দু’জন তৃতীয় শ্রেণির এবং দু’জন প্রথম শ্রেণির ছাত্রী। ঘটনা পরম্পরা খানিকটা এরকম – গত সপ্তাহের শুক্রবার দুপুরের দিকে তৃতীয় শ্রেণির দুই ছাত্রী জয়নালের বাড়িতে জলপাই কুড়াতে যায়। এই সময় বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে সে ওই দুই শিশুকে জলপাই খাওয়ানোর লোভ দেখিয়ে ঘরে ঢুকিয়ে ধর্ষণ করে। এরপর গত রবিবার দুপুরের দিকে প্রথম শ্রেণির দুই ছাত্রীও জয়নালের বাড়িতে যায় জলপাই নিতে। একই লোভ দেখিয়ে সে ওই দুই শিশুকেও ধর্ষণ করে। এই ঘটনার পর চার শিশু আতঙ্কে অসুস্থ হয়ে পড়ে। বাবা-মা তাদের সঙ্গে কথা বলে ধর্ষণের বিষয়ে জানতে পারেন। তখনই চার শিশুর অভিভাবক জয়নালের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান হারুন-অল-রশিদের কাছে যান।

[আরও পড়ুন: রোহিঙ্গা শিবির এলাকায় বন্ধ হল 3G ও 4G পরিষেবা]

চেয়ারম্যানের অভিযোগের ভিত্তিতে গত মঙ্গলবার সকালে জয়নালকে পুলিশ আটক করে। চার শিশুর বাবা জয়নাল আবেদিনের বিরুদ্ধে পৃথক দুটি ধর্ষণের মামলা করেছেন। এসব মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে জয়নালকে পরেরদিনই আদালতে পাঠানো হয়। এ সময় সে ধর্ষণের কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দেয়। ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসমাইল হোসেন জানিয়েছেন, আদালতের নির্দেশে জয়নালকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। নিগৃহীত চার শিশুকে বগুড়ার শহিদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর আদালতে জবানবন্দি নিয়ে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং