১০ মাঘ  ১৪২৬  শুক্রবার ২৪ জানুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: শ্বশুরবাড়িতে ঢুকে মেয়েকে এলোপাথাড়ি কোপানোর অভিযোগ উঠল বাবার বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগনার অশোকনগরের গোলবাজার এলাকায়। আক্রান্ত বধূ গুরুতর আহত অবস্থায় আরজি কর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। অভিযুক্তের বিরুদ্ধে অশোকনগর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন আক্রান্তের শাশুড়ি। তদন্ত শুরু করেছে অশোকনগর থানা। 

জানা গিয়েছে, অশোকনগরের জনকল্যাণ পল্লি এলাকার বাসিন্দা বর্ণালী হালদার নামে বছর কুড়ির ওই তরুণী। প্রায় তিন বছর ধরে গোলবাজারের গোডাউন এলাকার শংকর হালদারের সঙ্গে প্রণয়ের সম্পর্ক ছিল ওই তরুণীর। কিন্তু প্রথম থেকেই তাঁদের সম্পর্কে আপত্তি ছিল বর্ণালীর পরিবারের সদস্যদের। এরপর মাস তিনেক আগে পেশায় কাঠ মিস্ত্রি শংকরের সঙ্গে ঘর ছাড়েন বর্ণালী। শ্বশুরবাড়িতে সংসার শুরু করেন তরুণী। কিছুদিন আগে মেয়েকে বাড়ি নিয়ে যাওয়ার জন্য শ্বশুরবাড়িতে যান বর্ণালীর বাবা দুলাল। সেই সময় তিনি তরুণীকে জানান যে, বিয়ে মেনে নেবেন তাঁরা। কিন্তু বাবার সঙ্গে যেতে রাজি হননি তরুণী।

[আরও পড়ুন: ‘দিদিকে বলো’ কর্মসূচিতে বিরোধীদের ডেকে মতামত শুনলেন রাজ্যের মন্ত্রী]

এরপর রবিবার হঠাৎই সাইকেলে মেয়ের শ্বশুরবাড়িতে হাজির হয় দুলাল। সূত্রের খবর, শ্বশুরবাড়িতে গিয়ে মেয়েকে ডাকতে থাকে সে। জানায় যে সমিতিতে জমা দেওয়ার জন্য ৫০০ টাকা দিতে সেখানে গিয়েছে সে। দুলালবাবু ডাকছে শুনতে পেয়ে ঘর থেকে বের হন তরুণীর শাশুড়ি। অভিযোগ, তাঁকে ধাক্কা দিয়ে ঘরে ঢুকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে বর্ণালীকে কোপাতে শুরু করে দুলাল। চিৎকারে প্রতিবেশীরা জড়ো হতেই অস্ত্র হাতেই চম্পট দেন অভিযুক্ত। রক্তাক্ত অবস্থায় স্থানীয়রা বধূকে উদ্ধার করে অশোকনগর স্টেট জেনারেল হাসপাতালে ভরতি করে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় বর্তমানে ওই তরুণী আরজিকর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। অভিযুক্তের বিরুদ্ধে অশোকনগর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন বধূর শাশুড়ি। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

[আরও পড়ুন: ‘নির্ভয়া কাণ্ডে অভিযুক্তদের আমি ফাঁসি দেব’ রাষ্ট্রপতিকে আবেদন মেদিনীপুরের যুবকের]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং