৫ মাঘ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ১৯ জানুয়ারি ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

বঙ্গ জয় করতে মরিয়া বিজেপি, রাজ্যের দায়িত্বে আরও ৫ কেন্দ্রীয় নেতা

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: November 29, 2020 10:38 pm|    Updated: November 29, 2020 10:38 pm

An Images

রূপায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়: ২০২১ সালে হতে চলা পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচন বিজেপির কাছে মহাযুদ্ধের সামিল! তাই এবার সর্বশক্তি নিয়োগ করে এই জয় সুনিশ্চিত করতে চাইছে তারা। এই জন্যই রাজ্যের সংগঠনের হাল খতিয়ে দেখত আসছেন বিজেপির আরও পাঁচ কেন্দ্রীয় নেতা। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন গুজরাট এবং উত্তরপ্রদেশের মতো রাজ্যের বিজেপির সংগঠনের প্রধানরা। যা যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল। বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে বাংলায় দলের অগ্রগতি ও সংগঠন সাজিয়ে নিতে কার্যত বিজেপির কেন্দ্রীয় টিমের একটা বড় অংশকেই মাঠে নামিয়ে দিচ্ছেন অমিত শাহ। পাঁচটি জোনের সংগঠন দেখতে আরও যে ৫ জন আসছেন তারা পাঁচটি রাজ্যের সাধারণ সম্পাদক সংগঠন।

বিজেপি (BJP) সূত্রে খবর, গুজরাতের সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন) ভিখুভাই দালসানিয়া আসছেন নবদ্বীপ জোনের দায়িত্বে। উত্তরপ্রদেশের সংগঠন সম্পাদক সুনীল বানসাল দেখবেন কলকাতা জোন। ত্রিপুরার সংগঠন সম্পাদক আসছেন উত্তরবঙ্গ জোনের দায়িত্বে। হরিয়ানার সংগঠন সম্পাদক রবীন্দ্র রাজু দেখবেন রাড়বঙ্গ জোন। আর হাওড়া-হুগলি-মেদিনীপুর জোনের সংগঠন দেখবেন হিমাচল প্রদেশের সাধারণ সম্পাদক (সংগঠন) পবন রানা। ইতিমধ্যেই পাঁচটি জোনের পাঁচজন কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষকরা দায়িত্ব নিয়েছেন। এবার সংগঠন দেখার জন্য আলাদা কেন্দ্রীয় নেতাদের দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে ওইসব জোনে। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য গুজরাত, উত্তরপ্রদেশ ও ত্রিপুরায় বিজেপির সংগঠন প্রধানরা।

[আরও পড়ুন: রাজ্যে দৈনিক করোনা সংক্রমণ কমলেও মৃত্যুহার বেশি, কলকাতায় বাড়ল কনটেনমেন্ট জোন]

এদিকে পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা ভোট (Assembly Election) -এর আগে এই কেন্দ্রীয় নেতাদের আসা নিয়ে ‘বহিরাগত’ ইস্যু তুলে বিজেপিকে আক্রমণ করেছে শাসক তৃণমূল। যার জবাবে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের বক্তব্য, বিজেপি সর্বভারতীয় পার্টি। ভোটের সময় অন্য রাজ্যের নেতারা আসেন। এটাই নিয়ম। এতবড় একটা নির্বাচন আমরা লড়তে যাচ্ছি। অনেক কর্মীদের অভিজ্ঞতা কম আছে। তাই কেন্দ্রীয় পার্টির থেকে সহযোগিতা তো চাইবই।

এপ্রসঙ্গেই তৃণমূলকে দিলীপবাবুর জবাব, তৃণমূলের তো কোথাও কেউ নেই। আসার প্রশ্নও নেই। ওরা কোথাও গেলে উৎপাত ও নাটক করতে যায়। এই রাজ্যে মহাযুদ্ধের প্রস্তুতি নিয়েই নামছে বিজেপি। আর পাহাড়ের মানুষও বিমল গুরুং কিংবা বিনয় তামাংদের সঙ্গে নয় বিজেপির সঙ্গেই আছে। পাহাড়ে বুথ পর্যন্ত সংগঠন মজবুত করার কাজ চলছে। ডিসেম্বরে তাঁর পাহাড় সফরে যাওয়ার পরিকল্পনাও রয়েছে।

[আরও পড়ুন: সম্প্রীতির নজির আসানসোলে, হিন্দু বৃদ্ধের শেষকৃত্য সারলেন মুসলিমরা]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement