২৮ আশ্বিন  ১৪২৬  বুধবার ১৬ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

চন্দ্রশেখর চট্টোপাধ্যায়, আসানসোল: বৃহস্পতিবার রাতে আসানসোলের রেলের অনুষ্ঠানে লোকো স্টেডিয়ামের মঞ্চে মলয় ঘটক, উজ্জ্বল চট্টোপাধ্যায়, ও জিতেন্দ্র তিওয়ারিকে এক হাত নিলেন সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। তিনি বলেন, সকাল থেকে তিনটে সরকারি অনুষ্ঠান করলাম। তিনটেতেই এলাকার বিধায়কদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। কিন্তু দুঃখের বিষয় পাণ্ডবেশ্বর স্টেশনের অনুষ্ঠানে ফলকে নাম থাকা সত্বেও এলাকার বিধায়ক তথা মেয়র জিতেন্দ্র তিওয়ারি এলেন না। আমন্ত্রণ থাকা সত্বেও বরাকরের শৌচালয় উদ্বোধনের অনুষ্ঠানে এলেন না কুলটির বিধায়ক উজ্জ্বল চট্টোপাধ্যায়। একইভাবে লোকো স্টেডিয়ামে সোলার হাইমাস্ট আলো উদ্বোধনেও এলেন না আসানসোল উত্তরের বিধায়ক তথা মন্ত্রী মলয় ঘটক।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বলেন, ‘ওনারা এলে ফলকে বা আমন্ত্রণপত্রে মন্ত্রী, বিধায়ক, মেয়র যেভাবে সংবর্ধিত করা হয়েছে সেই মর্যাদাতেই তাঁরা থাকতেন। ওনারা এলে ছোট হয়ে যেতেন না। কিন্তু অনুষ্ঠানে না আসায় ওনারা তৃণমূল নেতা হিসাবেই থেকে গেলেন। আসলে এনাদের কাছে সংবিধানের সরকারি পদের থেকে অনেক বেশি গুরুত্ব দলীয় পদ। দেশের ফেডারেল স্ট্রাকচারের গরিমাকে এনারা অপমানিত করছেন।’ তিনি বলেন, ‘মঞ্চের সোফাতে যেখানে সাদা টাওয়েল দেওয়া রয়েছে সেখানে তাঁরা বসে থাকলে আসানসোলের মানুষের অনেক উপকার হত।’

পাণ্ডবেশ্বর স্টেশনের পর এদিন বিকেলে বরাকর স্টেশনে শৌচালয়, রাতে আসানসোল স্টেশনের লোকো স্টেডিয়ামে সোলার হাইমাস্ট আলোর উদ্বোধন করেন। এরপরে তিনি প্রতীকী ফুটবল খেলায় অংশগ্রহণ করেন।

 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং