১২ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৯  শনিবার ২৮ মে ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

সাতসকালে বর্ধমানের জনবহুল এলাকায় ব্যাংক ডাকাতি, লকার খুলে নগদ টাকা নিয়ে উধাও দুষ্কৃতীরা!

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: January 21, 2022 1:27 pm|    Updated: January 21, 2022 1:52 pm

Bank Robbery in Purba bardhaman, investigation underway | Sangbad Pratidin

ছবি: প্রতীকী।

অর্ক দে, বর্ধমান: পূর্ব বর্ধমানের জনবহুল এলাকায় ভয়াবহ ব্যাংক ডাকাতি।কর্মীদের মারধর করে টাকা নিয়ে চম্পট দিল দু্ষ্কৃতীরা! ঘটনাকে কেন্দ্র করে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে কার্জন গেট এলাকায়। ঘটনার খবর পাওয়ামাত্রই পূর্ব বর্ধমান জেলা পুলিশ সুপার কামনাশিস সেন, বর্ধমান দক্ষিণ এসডিপিও সদর ও অন্যান্য আধিকারিকরা ব্যাংকের শাখায় পৌঁছন। গঠন করা হচ্ছে সিট।

ঘটনার সূত্রপাত শুক্রবার সকালে। জানা গিয়েছে, এদিন সকালে বর্ধমানের কার্জন গেট সংলগ্ন বৈদ্যনাথ কাটরা বাজার এলাকার রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকটি খোলার সঙ্গে সঙ্গে পাঁচজন দুষ্কৃতী আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে সেখানে ঢুকে পড়ে। সেই সময় অল্প কয়েকজন গ্রাহক ও কর্মী সেখানে ছিলেন। অভিযোগ, লকারের চাবির জন্য কর্মীদের উপর চাপ দেয় তারা। দু’জন কর্মীকে আঘাত করা হয় বলেও খবর। এরপর লকার থেকে টাকা নিয়ে ব্যাংক ছাড়ে অভিযুক্তরা। ঘটনাকে কেন্দ্র করে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায়।

[আরও পড়ুন: ‘ব্যক্তিগত সমস্যা’, কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা ছাড়তে চেয়ে দলকে চিঠি বাঁকুড়ার ২ ‘বিক্ষুব্ধ’ বিধায়কের]

ঘটনার খবর পাওয়ামাত্রই পূর্ব বর্ধমান জেলা পুলিশ সুপার কামনাশিস সেন, বর্ধমান দক্ষিণ এসডিপিও সদর ও অন্যান্য আধিকারিকরা ব্যাংকের শাখায় পৌঁছন। ডাকাতি প্রসঙ্গে পুলিশ সুপার বলেন, “আমি জানার সঙ্গে সঙ্গে চলে এসেছি। ইতিমধ্যেই সব জায়গায় নাকা চেকিং শুরু হয়েছে। গঠন করা হচ্ছে সিট। দ্রুতই অভিযুক্তরা পুলিশের জালে ধরা পড়বে।” প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছে, তিরিশ থেকে পয়ত্রিশ লক্ষ টাকা নিয়ে চম্পট দিয়েছে অভিযুক্তরা। 

এক গ্রাহক জানিয়েছেন, এদিন তিনি ব্যাংকে কাজে এসেছিলেন। ঢুকে দেখেন চারপাশ শুনশান। প্রথমে কিছু বুঝতে পারেননি তিনি। এরপর হঠাৎ দুষ্কৃতীরা তাঁর মোবাইল ফোনটি নিয়ে নেয়। তার চোখের সামনেই চলেছে গোটা লুটের ঘটনা।দিনে দুপুরে জনবহুল এলাকায় এই ডাকাতির ঘটনায় নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতে শুরু করেছেন স্থানীয়রা। 

[আরও পড়ুন: দুয়ারে স্কুল! মাধ্যমিক-উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের বাড়ি গিয়েই পড়াচ্ছেন শিক্ষকরা]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে