BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

তৃণমূল ‘চোরেদের সরকার’, কটাক্ষ বিজেপি নেত্রী অগ্নিমিত্রা পালের

Published by: Paramita Paul |    Posted: September 13, 2020 7:40 pm|    Updated: September 13, 2020 8:29 pm

An Images

সুরজিৎ দেব, ডায়মন্ড হারবার: তৃণমূলের (TMC) সরকারকে ‘চোরেদের সরকার’ বলে কটাক্ষ করলেন রাজ্য বিজেপির (BJP) মহিলা মোর্চার সভানেত্রী অগ্নিমিত্রা পাল। রবিবার এক কর্মসূচিতে কাকদ্বীপ ও নামখানায় হাজির ছিলেন বিজেপি নেত্রী। সেখান থেকেই তিনি বলেন, “চোরেদের সরকার তৃণমূলের সরকার। রাজ্যে মহিলাদের ধর্ষণ, খুন ও শ্লীলতাহানির যত ঘটনা ঘটছে তার বেশিরভাগই শাসকদলের নেতা ও কর্মীরাই করছে। মুখ্যমন্ত্রীর পোষা গুন্ডারাই রাজ্য জুড়ে এভাবে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।”

মথুরাপুর সাংগঠনিক জেলার বিজেপি সভাপতি দীপঙ্কর জানার ব্যবস্থাপনায় কাকদ্বীপ ও নামখানায় ভারত সেবাশ্রম ও রোটারী ক্লাবের উদ্যোগে এলাকার অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে পড়া পরিবারের মহিলাদের হাতে স্যানিটারি ন্যাপকিন ও শুকনো খাবার তুলে দেন বিজেপি নেত্রী অগ্নিমিত্রা পাল। সেখান থেকেও এদিন মহিলা মোর্চার সভানেত্রী তৃণমূল নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে সরব হন। হুঁশিয়ারি দেন পুলিশকেও। তিনি বলেন, “রাজ্য জুড়ে মহিলাদের উপর অত্যাচার বাড়ছে। রেহাই দেওয়া হচ্ছে না শিশুদেরও। মহিলারা খুন, ধর্ষণ, শ্লীলতাহানির শিকার হচ্ছেন প্রায়ই। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এসব অসামাজিক কাজ করে বেড়াচ্ছে শাসকদলের নেতা ও কর্মীরাই। মুখ্যমন্ত্রী নিজে মহিলা হয়েও তাঁর মুখ থেকে প্রতিবাদের শব্দ বেরোয় না। আসলে অপরাধীরা সবই তো তাঁর পোষা গুন্ডা। তারাই আবার তৃণমূলের কর্মী। পুলিশও নীরব। কিন্তু ‘দিদি’ যখন মুখ্যমন্ত্রী থাকবে না কে বাঁচাবে আপনাদের?”

[আরও পড়ুন : রাজগঞ্জের ২ বোনের মেডিক্যাল রিপোর্টে নেই গণধর্ষণের উল্লেখ, ধামাচাপার অভিযোগ বিজেপির]

বিজেপি নেত্রী এদিন তৃণমূলের সরকারকে ‘চোরেদের সরকার’ বলে উল্লেখ করে বলেন, “দেশের অন্যান্য রাজ্যে যখন একের পর এক উন্নতি হচ্ছে, কর্মসংস্থান হচ্ছে। এ রাজ্যে তখন খুন, ধর্ষণ, চুরি হচ্ছে। মুখ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন তৃণমূলের সরকার চোরেদের সরকার। আমফানের টাকা, প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার বাড়ি এমনকী ত্রাণের ত্রিপলও চুরি করছে।” বিজেপি কার্যকর্তাদের উদ্দেশে তাঁর বার্তা, “২০২১ তে বিজেপির এ রাজ্যে ক্ষমতায় আসার একটা আভাস পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু জিতব ভাবা আর আসলে জেতার মধ্যে অনেক তফাত। আমরা কিন্তু জেতার ব্যাপারে অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসী হয়ে পড়ছি। সকলে মিলে কাজ করে যান। নিজেদের মধ্যে পদ পাওয়া নিয়ে খেওখেয়ি করবেন না। ২১-এ আমাদের ক্ষমতায় আসার যে সুযোগ এসেছে আগামী দশবছরে আর তা আসবে না। মনে রাখবেন, এবারও যদি তৃণমূল আবার ক্ষমতা পেয়ে যায় আমাদের কিন্তু টিকতে দেবে না।”

[আরও পড়ুন : টাকার বিনিময়ে পাশ করানোর টোপ! শিলিগুড়ি কলেজের অধ্যাপকের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement