BREAKING NEWS

২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৭ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

‘বিজেপির নবান্ন অভিযানে পুলিশি হামলা তৃণমূলের মরণ কামড়’, কটাক্ষ লকেটের

Published by: Paramita Paul |    Posted: October 11, 2020 9:34 pm|    Updated: October 11, 2020 9:39 pm

An Images

সংগ্রাম সিংহ রায়, শিলিগুড়ি: নবান্ন অভিযানে বিজেপি কর্মী সমর্থকদের উপর পুলিশি আক্রমণকে তৃণমূলের বিদায়ের আগে মরণ কামড় বলে কটাক্ষ করলেন বিজেপি নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়। রবিবার এক ঝাঁক বিজেপি নেতা-নেত্রী শিলিগুড়িকে কেন্দ্র করে উত্তরবঙ্গে দলের ক্ষমতা বৃদ্ধি এবং সাংগঠনিক কাজকর্ম গোছাতে দলীয় বৈঠক করেন। সেই বৈঠকেই সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়ের দাবি, “বড় ভূমিকম্পের আগে যেমন ঝড় বৃষ্টি কিংবা থমথমে আবহাওয়া থাকে। বিজেপির নবান্ন অভিযান আসলে সেই ভূমিকম্পের পূর্বাভাস। ২০২১-এর বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি বাংলায় সরকার গড়বে।”

শিলিগুড়িতে হিলকার্ট রোডে জয়মনি ভবনে বিজেপি কার্যালয়ের এই বৈঠকে আসন্ন নির্বাচনগুলিতে বিশেষ করে বিধানসভায় দলের রণনীতি কী হবে তা নিয়ে আলোচনা সারে নেতৃত্ব। এদিনের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বিজেপির কেন্দ্রীয় কমিটির সম্পাদক অরবিন্দ মেনন, বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সম্পাদক শিব প্রকাশ, জলপাইগুড়ির সাংসদ জয়ন্ত রায়, সাংসদ সুকান্ত মজুমদার, সাংসদ নিশীথ প্রামাণিক, সাংসদ জন বারলা-সহ অন্যান্য বিজেপি নেতা-নেত্রীরা। সূত্রের খবর, আগামী ১৭ অক্টোবর কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ একদিনের সফরে উত্তরবঙ্গে আসছেন বলে জানা গিয়েছে। শিলিগুড়িতে কোনও দলীয় কর্মসূচিতে যোগ দেবেন তিনি।

BJP meeting at siliguri

[আরও পড়ুন : ‘ঠিকাদারি করে ‘নেতাগিরি’ চলবে না’, তৃণমূল কর্মীদের কড়া বার্তা পুরুলিয়া জেলা সভাধিপতির]

এদিনের বৈঠকে বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় মুখ্যমন্ত্রীকে আক্রমণ করেন। লকেট বলেন, “হাথরসের ঘটনা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী পথে নেমেছেন। নিজের রাজ্য ছেড়ে তিনি অন্য রাজ্য নিয়ে রাজনীতি করছেন। রাজগঞ্জ-সহ বিভিন্ন জায়গায় ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে। কিন্তু এখানে মুখ্যমন্ত্রী মিছিল করছেন না।” তিনি আরও বলেন, “বাংলার মানুষ বিজেপিকে চায়। আগামীদিনে বাংলায় বিজেপিই আসবে।” রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু বলেন, “বর্তমানে তৃণমূলের অস্তিত্ব বিপন্ন। তৃণমূল শুধু রাজনীতি করছে।” নবান্ন অভিযান নিয়ে সায়ন্তন বসু বলেন, “এই ঘটনা অত্যন্ত লজ্জাজনক।” এছাড়াও পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেবকে সায়ন্তনের কটাক্ষ, “গৌতম দেব নিজের বিধানসভা ক্ষেত্রে ৮০ হাজার ভোটে হরেছেন, তবুও তিনি রাজনীতি করছেন। তাঁর কথার কোনও অর্থ নেই।”       

[আরও পড়ুন : এক ঘণ্টার মধ্যে সরকারি প্রকল্পের ২ বার উদ্বোধন! ফের প্রকাশ্যে তৃণমূলের অন্তর্দ্বন্দ্ব]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement