৩০ আশ্বিন  ১৪২৬  শুক্রবার ১৮ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

রঞ্জন মহাপাত্র, কাঁথি: নিখোঁজ হওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই দিঘার সমুদ্র সৈকত থেকে উদ্ধার হল শিশুর দেহ। রবিবার সকালে সমুদ্রের ধার থেকে আচমকাই বেপাত্তা হয়ে গিয়েছিল আবির ধাড়া নামে ওই খুদে। পরিবারের তরফে দিঘা থানায় অভিযোগ দায়ের করা হলে তার খোঁজে সমুদ্রে তল্লাশি শুরু করে পুলিশ। পরে সোমবার সকালে দিঘার মেরিনা ঘাট থেকে উদ্ধার হয় শিশুটির দেহ।

[আরও পড়ুন: ‘দিদিকে বলো’ কর্মসূচিতে গ্রামে সারপ্রাইজ ভিজিট বিধায়কের, ঘরে ঘরে গিয়ে শুনলেন সমস্যা]

৬০ জনের একটি দল হুগলির জঙ্গিপাড়া থেকে দিঘায় বেড়াতে গিয়েছিল। সেই দলেই বাবা রণজিৎ ধাড়া ও মা পূর্ণিমা ধাড়ার সঙ্গে সমুদ্রসৈকতে বেড়াতে যায় বছর সাতেকের ছোট্ট আবির। শনিবার দুপুরে দিঘার জগন্নাথ ঘাটে স্নান করতে নামেন শিশুর বাবা-মা। সেইসময় সমুদ্রের পাড়ে খেলা করছিল আবির। তার সঙ্গে ছিল আরও বেশ কয়েকজন শিশু।

আবিরকে মশলা মুড়ি কিনে দিয়েছিলেন বাবা-মা। খেলার মাঝে সে ওই মুড়িও খাচ্ছিল। এরই মাঝে সমুদ্রে চলে যায় রণজিৎ এবং পূর্ণিমা। মাঝে কেটে যায় প্রায় আধঘণ্টা। সমুদ্রে স্নান সেরে পাড়ে উঠে আসেন তাঁরা। তবে তারপরই হইহই পড়ে যায়। আর দেখা যায়নি আবিরকে। অনেক খোঁজাখুঁজির পরেও তার দেখা মেলেনি। তাই বাধ্য হয়ে দিঘা থানার পুলিশের দ্বারস্থ হয় শিশুর বাবা-মা। সমুদ্রে ডুবুরি নামিয়ে তল্লাশি শুরু হয়। পরে সোমবার সকালে দিঘার মেরিনা ঘাট থেকে উদ্ধার হয় একটি শিশুটির দেহ। ইতিমধ্যেই দেহটি শনাক্ত করেছে আবিরের বাবা-মা। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, বাবা-মার পিছু পিছুই সমুদ্রে নেমে গিয়েছিল আবির। তার জেরেই এই মর্মান্তিক পরিণতি।

[আরও পড়ুন: মানসিক ভারসাম্যহীন মহিলাকে গণপিটুনি, উদ্ধার করতে গিয়ে আক্রান্ত পুলিশ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং